ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৯:৩৩ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৯
নিহত ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিন সোহেল

চট্টগ্রামের পাহাড়তলী বাজারে নিহত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিন সোহেলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় করা মামলার তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডবলমুরিং থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জহির হোসেন নগর পুলিশের প্রসিকিউশন শাখায় চার পাতার অভিযোগপত্রটি জমা দেন। এতে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের একজন কাউন্সিলর ও জাতীয় পার্টির একজন নেতাসহ মোট ৫২ জনকে আসামি করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, প্রায় ১০ মাস আগে গত ৭ জানুয়ারি নগরের ডবলমুরিং থানার পাহাড়তলী বাজারে ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন সোহেল নিহত হন। ঘটনার পর পুলিশ ও বাজারের ব্যবসায়ীরা জানায়, চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ হয়ে ব্যবসায়ী ও জনতার গণপিটুনিতে তার মৃত্যু হয়েছে। পরে ৮ জানুয়ারি রাতে মহিউদ্দিন সোহেলের ছোট ভাই শাকিরুল ইসলাম শিশির বাদী হয়ে নগরীর ডবলমুরিং থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

তবে এখন পুলিশের তদন্তে জানা গেছে, গণপিটুনি নয়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মহিউদ্দিন সোহেলকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়।

পুলিশ পরিদর্শক জহির হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, মহিউদ্দিন সোহেল হত্যা মামলায় প্রসিকিউশন শাখায় অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়েছে। অভিযোগপত্রে ৫২ জনকে আসামি করা হয়েছে। ঘটনার পর বিভিন্ন সময় ৩৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ১৭ জন পলাতক আছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, অভিযোগপত্রে প্রধান আসামি করা হয়েছে পাহাড়তলী বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সরাইপাড়া ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ দলীয় কাউন্সিলর সাবের আহাম্মেদক। দুই নম্বরে আছেন জাতীয় পার্টির নেতা ওসমান খান।

আবু আজাদ/এমএসএইচ/জেআইএম