সমঝোতা শেষে ঘরে ফিরলেন শ্রমিকরা

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:৪১ পিএম, ২১ নভেম্বর ২০১৯

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরে প্যারাডাইস ক্যাবলস লিমিটেডের মালিক ও শ্রমিকপক্ষের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে দুই দিনব্যাপী শ্রমিকদের অবস্থান ধর্মঘট শেষ হয়েছে। সমঝোতায় মধ্যস্থতা করে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় আওতাধীন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর (ডাইফ)।

বুধবার (২০ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৯টায় রাজধানীর বিজয়নগরে শ্রম ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে নারায়ণগঞ্জের কুতুবাইলে প্যারাডাইস ক্যাবলস লিমিটেডের শ্রমিকরা বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে শ্রম ভবনের সামনে আন্দোলন করে। এ প্রেক্ষিতে মালিকপক্ষকে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের প্রধান কার্যালয়ে তলব করা হয়। পরে মালিক ও শ্রমিকপক্ষের দীর্ঘ আলোচনা শেষে সমঝোতা হয়।

কারখানার শ্রমিক ও মালিক পক্ষের মধ্যে সমঝোতায় মধ্যস্থতা করেন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত সচিব) শিবনাথ রায়। বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত সচিব) মো. জয়নাল আবেদীন, যুগ্ম মহাপরিদর্শক (প্রশাসন ও উন্নয়ন) ডা. সৈয়দ আবুল এহসান, যুগ্ম মহাপরিদর্শক (সাধারণ) মো. শামসুল আলম খানসহ দফতরের পদস্থ কর্মকর্তারা।

সভায় সিদ্ধান্ত সমূহ-

# মালিকপক্ষ আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সব বৈধ শ্রমিকদের এক মাসের পূর্ণাঙ্গ বেতন দিবে। কারখানা চালু হলে চলতি প্রতিমাসের বেতনের সঙ্গে বকেয়া প্রতিমাসের বেতনের ২৫ শতাংশ হারে পরিশোধে বাধ্য থাকবে।

# আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে সব বৈধ শ্রমিকদের কর্মস্থলে ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে।

# কারখানা কর্তৃপক্ষ আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে শ্রমিক, মালিক, প্রশাসনসহ সবার সহযোগিতায় পূর্ণাঙ্গ উৎপাদন শুরুর ব্যবস্থা নিবে।

# ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব বৈধ শ্রমিকদের আরও এক মাসের পূর্ণাঙ্গ বেতন পরিশোধে বাধ্য থাকবে।

# মালিকপক্ষ যদি ৩১ জানুয়ারির মধ্যে কারখানা চালু করতে না পারে তাহলে সব বৈধ শ্রমিকদের মধ্যে যারা চাকরি থেকে অব্যাহতি নিতে ইচ্ছুক তাদের স্বাক্ষরিত আবেদন পাওয়া সাপেক্ষে বকেয়া বেতন, বোনাস, ওভার টাইমের টাকাসহ বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুযায়ী সব বকেয়া পাওনাদি ২৮ ফেব্রুয়ারি মধ্যে পরিশোধে বাধ্য থাকবে।

এএইচ/পিআর