মাছে ক্ষতিকর কেমিক্যাল পাওয়া যায়নি : বিএফএসএ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৪৭ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯

মাছে ক্ষতিকর রঙ ও ফরমালিন মেশানো হয় বলে বিভিন্ন মহলের অভিযোগ রয়েছে। এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর কারওয়ান বাজার থেকে বিভিন্ন মাছের নমুনা সংগ্রহ করে তাৎক্ষণিকভাবে পরীক্ষা করে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ (বিএফএসএ)। তবে বিএফএসএর ভ্রাম্যমাণ পরীক্ষাগারে মাছে ফরমালিন কিংবা অন্যান্য ক্ষতিকর কেমিক্যাল পাওয়া যায়নি।

বুধবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার কিচেন মার্কেট থেকে সংগ্রহ করা মাছের নমুনা পরীক্ষা শেষে এ ফলাফল জানায় নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। মাছ পরীক্ষার কার্যক্রমে নেতৃত্ব দেন বিএফএসএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শান্তুনু চৌধুরী।

Fish-(3).jpg

দুই ধাপে ইলিশ, বোয়াল, রুই, পাঙাশ, চিংড়ি, কাচকিসহ ১০ পদের মাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এরপর ভ্রাম্যমাণ নিরাপদ খাদ্য পরীক্ষাগারে তাৎক্ষণিকভাবে এসব নমুনা পরীক্ষা করা হয়। প্রতিটি নমুনা পরীক্ষায় ল্যাব কর্মকর্তা সময় নেন ৩-৪ মিনিট।

পরীক্ষা শেষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শান্তুনু চৌধুরী জাগো নিউজকে ব‌লেন, ‘আমরা আজকে শুধু মাছই পরীক্ষা করেছি। কারণ, মানুষের মাঝে একটি ধারণা তৈরি হয়েছে, মাছের মধ্যে ফরমালিন মেশানো হয়। আমাদের উদ্দেশ্য মানুষের সামনেই পণ্যের অবস্থা পরীক্ষা করে দেখানো, যাতে ক্রেতা-বিক্রেতারা সবাই সচেতন হতে পারে। তবে আশার কথা হচ্ছে, আজকে যেসব মাছের নমুনা পরীক্ষা করা হয়, তার সবকটির ফলাফল ভালো এসেছে। কোনো ক্ষতিকর রঙ, কেমিক্যাল বা ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।’

Fish-(3).jpg

এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘ভ্রাম্যমাণ নিরাপদ খাদ্য পরীক্ষাগারের কার্যক্রম আজ থেকে শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন এলাকায় নানা ধরনের পণ্য সংগ্রহ করে তাৎক্ষণিকভাবে পরীক্ষা করা হবে। পরীক্ষায় কোনো ধরনের ক্ষতিকর কেমিক্যাল মেশানোর প্রমাণ পাওয়া গেলে দায়ীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে।’

মাছের নমুনা নেয়ার প্রসঙ্গে বিক্রেতা কবির বলেন, ‘স্যাররা নমুনা নিচ্ছেন, (ফরমালিন বা কেমিক্যাল আছে কি না) তারাই বলতে পারবেন। তবে আমরা সরাসরি আড়ত থেকে মাছ এনে বিক্রি করি। মাছে কোনো ফরমালিন বা কেমিক্যাল আমরা মেশাই না।’

Fish-(3).jpg

এদিকে, বাজারে মাছ পরীক্ষার কথা শুনে ভ্রাম্যমাণ পরীক্ষাগারের সামনে ভিড় করে উৎসুক জনতা। সুলেমান নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘এ বাজার থেকে সবসময় মাছ কিনি। এভাবে মাছ পরীক্ষা করতে কখনও দেখিনি। ভালোই হলো, মাছে ক্ষতিকর কিছু আছে কি না তা জানা যাবে। ফলাফল দেখেই আজকে মাছ কিনব।’ ল্যাব পরীক্ষায় মাছে ক্ষতিকর কিছু পাওয়া যায়নি শুনে স্বস্তি প্রকাশ করেন এ ক্রেতা।

এসআই/এফআর/এসআর/এমএস