১২ বছর পদোন্নয়ন হয়নি বিএসএমএমইউর দুই শতাধিক অফিসারের!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১০:৩৫ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত দুই শতাধিক মেডিকেল অফিসারের গত ১২ বছরের বেশি সময়ে নিয়মিত পদোন্নয়ন হয়নি। একটা সময় বিশ্ববিদ্যালয় বহু চিকিৎসক মেডিকেল অফিসার থেকে পদোন্নতি পেয়ে বর্তমানে অধ্যাপক কিংবা বিভাগীয় চেয়ারম্যান হয়ে চাকরি করলেও ২০০৯ সালে সিন্ডিকেটের ৩৩তম সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্বের পদোন্নতি আইনকে রহিত করা হয়।

পূর্বের আইন পরিবর্তনের কারণে বর্তমানে প্রায় দুই শতাধিক বিশেষজ্ঞ মেডিকেল অফিসার দীর্ঘদিন যাবৎ পদোন্নতিবঞ্চিত মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে পদোন্নতিবঞ্চিত কয়েকজন মেডিকেল অফিসার জানান, এসব বিশেষজ্ঞ মেডিকেল অফিসার তাদের পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন ডিগ্রি সম্পন্ন করে দেশে-বিদেশে গবেষণা ও চিকিৎসা গ্রহণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুন্নত রেখেছেন। এসব চিকিৎসক বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় শিক্ষা চিকিৎসা গবেষণা ক্ষেত্রে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

তারা জানান, মেডিকেল সেক্টরে চিকিৎসকদের পদোন্নতি একটি নিয়মিত প্রক্রিয়ার ফলে চিকিৎসকরা তার শিক্ষাগত যোগ্যতা অভিজ্ঞতা ও কর্মদক্ষতা ছাত্র-ছাত্রীদের কল্যাণে কাজে লাগান। বিশ্ববিদ্যালয়ের অতীতের একটি নীতিমালাকে প্রয়োগ করে বহু চিকিৎসক মেডিকেল অফিসার থেকে পদোন্নতি পেয়ে বর্তমানে অধ্যাপক কিংবা বিভাগীয় চেয়ারম্যান হয়ে বৃহত্তর সেবা প্রদানের সুযোগ পেয়েছেন।

তারা আরও বলেন, রহিত করা পদোন্নতি আইনটি পুনরায় চালু না করলে বিপুলসংখ্যক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মেডিকেল অফিসার হিসেবে অবসর গ্রহণ করবেন। পদোন্নতিবঞ্চিত হওয়ার ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা তাদের যথাযথ শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে যেমন বঞ্চিত হচ্ছেন তেমনি রোগীরাও তাদের বিশেষায়িত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূলনীতি শিক্ষা চিকিৎসা গবেষণা কার্যক্রম এবং সেন্টার অব এক্সিলেন্স স্বপ্ন পিছিয়ে যাচ্ছে বলে তারা মনে করেন।

গত ২ ডিসেম্বর পদোন্নতিবঞ্চিত দুই শতাধিক উচ্চতর ডিগ্রিধারী মেডিকেল অফিসার/গবেষণা সহকারীরা বিএসএমএমইউর সি ব্লকের সামনে সমবেত হয়ে উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় আগামীকাল পদোন্নতিবঞ্চিত এসব চিকিৎসকরা সকাল ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ ও তার অফিসের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন।

এমইউ/এমআরএম