রাজস্ব ব্যবস্থাপনাকে যুগোপযোগী করতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:০৭ পিএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে রাজস্বের গুরুত্ব অনুধাবন করে রাজস্ব আইনসমূহ সংস্কার ও প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাসের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আমাদের সরকার রাজস্ব ব্যবস্থাপনাকে যুগোপযোগী ও শক্তিশালী করার যাবতীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।’

মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) ‘জাতীয় ভ্যাট দিবস-২০১৯’ ও ‘জাতীয় ভ্যাট সপ্তাহ- ২০১৯’ উপলক্ষে দেয়া বাণীতে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

জাতীয় ভ্যাট দিবস ও জাতীয় ভ্যাট সপ্তাহ উপলক্ষে দেশের জনগণ, ব্যবসায়ী, ভ্যাট আহরণ ও ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত রাজস্ব কর্মীদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সময় ও অর্থ সাশ্রয়ী আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর ভ্যাট ব্যবস্থা প্রবর্তনের লক্ষ্যে ১ জুলাই ২০১৯ থেকে নতুন মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন-২০১২ কার্যকর হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘অনলাইনের মাধ্যমে ভ্যাট প্রদান প্রক্রিয়া সহজতর হওয়ার পাশাপাশি রাজস্ব আহরণও অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে। ফলে ব্যবসা ও বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করাসহ রাষ্ট্রের রাজস্ব ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করার মাধ্যমে সরকারের রূপকল্প-২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়ন আরও বেগবান হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন এবং জাতির পিতার আজন্ম লালিত স্বপ্ন-ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে সকলকে সম্মিলিতভাবে এগিয়ে আসার জন্য আমি আহ্বান জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রতিষ্ঠিত জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ১৯৭২ সাল থেকে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণের মাধ্যমে দেশকে আত্মনির্ভরশীল করার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘ভ্যাট দেশের অভ্যন্তরীণ রাজস্বের অন্যতম প্রধান উৎস। রাজস্ব আয় থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়েই সরকার উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন ও সেবা প্রদানের ব্যয় নির্বাহ করে থাকে। এ অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে বর্তমান সরকার মজবুত ও টেকসই অর্থনৈতিক ভিত্তি বিনির্মাণ করছে।’

বাণীতে তিনি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) উদ্যোগে ‘জাতীয় ভ্যাট দিবস-২০১৯’ ও ‘জাতীয় ভ্যাট সপ্তাহ-২০১৯’ পালিত হচ্ছে জেনে আনন্দ প্রকাশ এবং দিবসের সর্বাঙ্গীণ সাফল্য কামনা করেন।

এফএইচএস/এফআর/এমকেএইচ