‘আর যেন কেউ এ ধরনের ধৃষ্টতা দেখাতে সাহস না পায়’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:০৮ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন, যারা যুদ্ধাপরাধী হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে, সেই চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি হয়েছে এবং তাদেরকে কোনো ক্রমেই ‘শহীদ’ হিসেবে আখ্যায়িত করার যে ধৃষ্টতা দেখিয়েছে এটি ঘৃণা করা এবং প্রতিবাদ জ্ঞাপনের কোনো ভাষা আমাদের জানা নেই।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) রাজধানীর মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

ঢাবি উপাচার্য বলেন, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রে যাতে এ ধরনের আস্ফালন, এ ধরনের ধৃষ্টতা যেন আর কেউ কখনো দেখাতে সাহস না পায় সেটিই হবে আজকে আমাদের শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের দৃঢ় প্রত্যয়।

তিনি বলেন, আমাদের সৌভাগ্য যে, এ মুহূর্তে বাংলাদেশে একটি বড় আকারের জাগরণ ঘটেছে। নতুন প্রজন্ম তাদের মধ্যে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অসাম্প্রদায়িকতা, মানবিক এবং উদার নৈতিক মূল্যবোধ ক্রমান্বয়ে গভীরভাবে প্রবেশ করছে। সেটি আমাদের একটি শক্তির বড় উৎস।

তিনি আরও বলেন, আমি আশা করব, তরুণ প্রজন্ম এ জিনিসগুলো তাদের যে মনোবল, তাদের যে দৃঢ়তা এবং তাদের যে নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধ সেটি দ্বারাই এ ধরনের অপশক্তিসমূহ আর কখনোই এ দেশে মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারবে না।

উল্লেখ্য, ১২ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) মানবতাবিরোধী অপরাদে ফাঁসি কার্যকর হওয়া আবদুল কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ আখ্যা দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে দৈনিক সংগ্রহ পত্রিকা। ২০১৩ সালের ওই দিনে (১২ ডিসেম্বর) জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

এইউএ/আরএস/এমকেএইচ