চাকরিতে ৩৫ : আমরণ অনশনে অসুস্থ চারজন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৮ পিএম, ২১ ডিসেম্বর ২০১৯

পাঁচ দিন ধরে চার দফা দাবিতে আমরণ অনশন করছেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের নেতাকর্মীরা। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে তাদের এই অনশন। অনশনে এসে ইতোমধ্যে গুরুতর অসুস্থ হয়েছেন চারজন। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অসুস্থরা হলেন- সুরাইয়া ইয়াসমিন (৩২), রেশমা আক্তার (৩৩), মুসাদ্দেক আলী রাসেল (৩৩) ও উজ্জ্বল (৩২)।

শনিবার সরেজমিন দেখা যায়, তীব্র শীতের মধ্যে খোলা আকাশের নিচে ফুটপাতে বসে আমরণ অনশনে আন্দোলনকারীরা।

চারকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৩৫ বছরে উন্নীতকরণ, অমানবিক আবেদন ফি কমিয়ে ৫০ থেকে ১০০ টাকার মধ্যে নির্ধারণ, নিয়োগ পরীক্ষাগুলো জেলা কিংবা বিভাগীয় পর্যায়ে নেয়া এবং ৩ থেকে ৬ মাসের মধ্যে নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পন্নসহ সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করার দাবিতে তাদের এই অনশন।

আমরণ অনশনের আগে টানা ১০ দিন জাতীয় প্রেস ক্লাবেরই সামনে গণঅনশন করেন তারা। গত ১৭ ডিসেম্বর সকাল থেকে তারা আমরণ অনশনে

সংগঠনের প্রধান সমন্বয়ক মুজাম্মেল মিয়াজী জানান, আমাদের যৌক্তিক দাবি আদায়ে গত পাঁচ দিন ধরে শীতের মধ্যে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে কনকনে শীতের মধ্যে খোলা আকাশের নিচে অনাহারে বসে অনশন করছি। টানা পাঁচ দিন পার হলেও সরকারের পক্ষ থেকে এখনও কোনো ধরনের আশ্বাস দেয়া হয়নি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারে আমাদের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হলেও তা এখনও বাস্তবায়ন করার উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এ কারণে বাধ্য হয়ে আমাদের আন্দোলনে নামতে হয়েছে। আমরণ অনশন পালনকালে আমাদের চারজন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। গুরুত্বর অসুস্থ হওয়ায় তাদের শরীরে স্যালাইন দিয়ে রাখা হয়েছে।

আন্দোলনকারীরা জানান, জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার (এনএসআই) মাধ্যমে আমাদের চার দফা দাবি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। আওয়ামী লীগের কাউন্সিলের পর আমাদের বিষয়টি নিয়ে সচিবালয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে একটি মাধ্যমে তারা জানতে পেরেছেন বলে জানান।

আজ সন্ধ্যায় আন্দোলনকারীরা মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করেন। এ সময় সবাই সারিবদ্ধ হয়ে হাতে মোমবাতি নিয়ে কিছু সময় দাঁড়িয়ে থাকেন।

এমএইচএম/জেডএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]