খসড়া ভোটার তালিকা ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সংশোধনের সুযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:২৬ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২০

নির্বাচন কমিশন (ইসি) হালনাগাদ ভোটার তালিকার (ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচি ২০১৯) খসড়া প্রকাশ করেছে গত ২০ জানুয়ারি। প্রকাশিত এই খসড়া তালিকায় তথ্যগত ভুলসহ নানা ধরনের অসঙ্গতির আশঙ্কায় সংশোধনের সুযোগ রেখেছে ইসি। আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দাবি, আপত্তি ও সংশোধনীর আবেদন করা যাবে। আর কর্তৃপক্ষকে তা ১২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে।

এ কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করেছে ইসি। সংশ্লিষ্টদের ২৪, ২৫ ও ৩১ জানুয়ারি এবং ১, ৭ ও ৮ ফেব্রুয়ারির সকল ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

ইসির সহকারী সচিব মো. মোশাররফ হোসেন স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়েছে, খসড়া ভোটার তালিকার বিষয়ে নির্ধারিত ফরমে দাবি, আপত্তি ও সংশোধনী সংক্রান্ত আবেদন নিষ্পত্তির লক্ষ্যে দুই বা ততোধিক ভোটার এলাকার জন্য ‘সংশোধনকারী কর্তৃপক্ষ’ নিয়োগ করা হয়েছে। গত ২০ জানুয়ারি খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশের পরবর্তী ১৫ দিন অর্থাৎ ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি এর ওপর দাবি, আপত্তি ও সংশোধনের জন্য আবেদন সংশোধনকারী কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করবেন। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির আবেদনগুলো সংশোধনকারী কর্তৃপক্ষকে ১২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে। তাই সাপ্তাহিক ছুটির দিন অর্থাৎ ২৪, ২৫ ও ৩১ জানুয়ারি এবং ১, ৭ ও ৮ ফেব্রুয়ারি কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম চলমান রাখার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

ইসি সূত্র জানায়, দাবি আপত্তি ও সংশোধনের জন্য দাখিল করা আবেদনের ওপর গৃহীত সিদ্ধান্ত সন্নিবেশনের শেষ দিন ২০ ফেব্রুয়ারি। তবে হালনাগাদ করা চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশের সময় এখনও জানাতে পারেনি ইসি।

খসড়া ভোটার তালিকা অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে মোট ভোটার সংখ্যা ১০ কোটি ৯৬ লাখ ৬ হাজার ১৮৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ কোটি ৫৩ লাখ ২৫ হাজার ২৯২ জন, নারী ভোটার ৫ কোটি ৪২ লাখ ৮০ হাজার ৫৪২ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গ (হিজড়া) ভোটার সংখ্যা ৩৫৩ জন।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ১০ কোটি ৪২ লাখ ৪০ হাজার ৮২ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ কোটি ২৫ লাখ ৭২ হাজার ৯৬৯ জন এবং নারী ভোটার ৫ কোটি ১৬ লাখ ৬৭ হাজার ১১৩ জন।

এ হালনাগাদে যোগ হয়েছে মোট ৬৭ লাখ ৫৮ হাজার ৩৪১ জন নতুন ভোটার। তাদের মধ্যে পুরুষ ৩৫ লাখ ৮২ হাজার ১৬৩ জন, নারী ভোটার ৩১ লাখ ৭৫ হাজার ৮২৫ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গ (হিজড়া) ভোটার ৩৫৩ জন।

মৃত্যুর কারণে বাদ পড়েছে মোট ১৩ লাখ ৯২ হাজার ২৩৬ জন ভোটার। তাদের মধ্যে পুরুষ বাদ পড়েছে ৮ লাখ ২৯ হাজার ৮৪০ জন ও নারী ৫ লাখ ৬২ হাজার ৩৯৬ জন।

ভোটার থাকা সত্ত্বেও দ্বিতীয়বার ভোটার হওয়ার চেষ্টা করেছে বা দ্বৈত ভোটার সনাক্ত করা হয়েছে মোট ২ লাখ ৭ হাজার ৬৩৫ জন। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানিয়েছেন সাইদুল ইসলাম।

মৃত্যু এবং দ্বৈত ভোটার বাদ দেয়ার পর এ খসড়া ভোটার তালিকায় নতুন যুক্ত হয়েছে মোট ৫৩ লাখ ৪৬ হাজার ১০৫ জন নতুন ভোটার। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ২৭ লাখ ৫২ হাজার ৩২৩ জন এবং নারী ভোটার ২৬ লাখ ১৩ হাজার ৪২৯ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গ (হিজড়া) ভোটার ৩৫৩ জন।

নতুন ভোটারদের তথ্যে কোনো ভুল থাকলে কিংবা আপত্তি থাকলে তা সংশোধনের জন্য আবেদন গ্রহণ চলমান রয়েছে।

পিডি/এনএফ/জেআইএম