সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিরাপদে হজ পালন করুন : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৩৪ পিএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২০

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ শেখ মো. আব্দুল্লাহ বলেছেন, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে গেলে হজযাত্রীরা সহজ ও সুন্দরভাবে হজ করতে পারেন। সব ধরনের প্রতারণা ও বিড়ম্বনা পরিহার করে নিরাপদে হজ পালন করা যায়। এ বিষয়ে সারাদেশের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে হজযাত্রীদের সঠিক তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে হবে।

শনিবার সকালে ইসলামিক ফাউন্ডেশন, গোপালগঞ্জ জেলা কার্যালয় আয়োজিত মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পের শিক্ষক ও ওলামা মাশায়েখদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা এবং মসজিদ পাঠাগার প্রকল্পের আওতায় আলমিরা ও জাকাতের অর্থায়নে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, হজযাত্রীদের অবশ্যই সরকার প্রদত্ত নিয়মকানুন জেনে হজে যেতে হবে। হজে যেতে যেকোনো ধরনের মধ্যস্বত্বভোগী ও দালাল পরিহার করতে হবে। এ ক্ষেত্রে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালন সবচেয়ে উত্তম পন্থা।

তিনি বলেন, এ বছর হজচুক্তিতে ১০ হাজার হজযাত্রীর কোটা বৃদ্ধি করা হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনার ১৭ হাজার ১৯৮ জনসহ মোট এক লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র বিনির্মাণের মাধ্যমে দেশের সব মানুষের কাছে ইসলামের শান্তির বাণী সঠিকভাবে পৌঁছে দিতে চান। সারাদেশে দ্রুতগতিতে এসব মসজিদ নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রসমূহ ধর্মীয় কার্যক্রমের পাশাপাশি নানাবিধ সামাজিক ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনার প্ল্যাটফর্ম হিসেবে অবদান রাখবে। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদকাসক্তি, নারীর প্রতি সহিংসতা, বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ বিষয়ে মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধিতে এ দেশের আলেম সমাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অভিযাত্রায় এ দেশের আলেম সমাজ ভবিষ্যতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

গোপালগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কাজী মো. শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. আসলাম হোসেন খান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আনিছুজ্জামান শিকদার প্রমুখ।

সভায় গোপালগঞ্জ, বরিশাল, ঝালকাঠি, মাদারীপুর, যশোর, নড়াইল থেকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা এবং বিপুলসংখ্যক ওলামা মাশায়েখ অংশগ্রহণ করেন।

এমইউ/এমএআর/পিআর