মশক নিধনে বিশেষ কর্মসূচি চালু করল ডিএনসিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৫৩ পিএম, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কিউলেক্স মশার প্রকোপ বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে দুই সপ্তাহব্যাপী বিশেষ মশক নিধন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) ডিএনসিসির ৪ নম্বর ওয়ার্ডের আওতাধীন মিরপুর-১৩ এর পুলিশ স্টাফ কলেজের পেছনের এলাকা থেকে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়।

প্যানেল মেয়র জামাল মোস্তফা এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। নতুন ও পুরনো ৫৪টি ওয়ার্ডের প্রতিটিতে চলবে এ কার্যক্রম।

কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে জামাল মোস্তফা বলেন, 'এই ক্র‍্যাশ প্রোগ্রাম ১৪ দিন ধরে চলবে এবং জনগণ নিশ্চয়ই এর সুফল পাবে বলে আমরা আশা করছি। ক্র‍্যাশ প্রোগ্রামে নিয়মিত ফগার মেশিনের পাশাপাশি ডিএনসিসির আনা নতুন তিন ধরনের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হবে। এসব যন্ত্রপাতির মাঝে রয়েছে- ২০টি করে হুইল ব্যারো এবং মিস্ট ব্লোয়ার পাওয়ার স্প্রে এবং দুইটি ভেহিকেল মাউন্টেইন্ড ফগার মেশিন।'

dncc-2.jpg

তিনি বলেন, 'কর্মসূচি চলাকালীন প্রত্যেক কাউন্সিলর ওয়ার্ড পর্যায়ে স্থায়ী মশক কর্মী ও আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে নিয়োগকৃত ১০ জন করে মশক কর্মীর নিয়মিত হাজিরা ওয়ার্ড সচিব ও মশক সুপারভাইজারদের মাধ্যমে নিশ্চিত করে সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মাধ্যমে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন। আউটসোর্সিংয়ের ১০ জন কর্মীর মধ্যে পাঁচ জন নিয়মিত লার্ভিসাইডিং ও ফগিং কার্যক্রমে সহায়তা করবে এবং অন্য পাঁচ জন নিয়মিত মশক কর্মীদের সঙ্গে এডিস/কিউলেক্স মশার প্রজননস্থল (হট স্পট) চিহ্নিত ও ধ্বংস করবে। আমরা মশার প্রকোপ কমার আগে কোনো মশক কর্মী ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের ছুটি প্রদান করছি না।'

এ সময়ে ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মমিনুর রহমান মামুন, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর মঞ্জুর হোসেন, ডিএনসিসির সচিব রবীন্দ্র শ্রী বড়ুয়া, উপ-প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা লে. কর্নেল গোলাম মোস্তফা সারোয়ার, অঞ্চল-৪ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা সালেহা বিনতে সিরাজ সহ স্থানীয় কাউন্সিলরগণ উপস্থিত ছিলেন।

এএস/এফআর/এমএস