গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ালে ক্ষমতায় থাকা যাবে না : মান্না

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:০৮ পিএম, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কোনোভাবেই গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করা যাবে না উল্লেখ করে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘যদি এগুলো করে থাকেন তাহলে ক্ষমতায় থাকা যাবে না। এমনিতেই আপনাদের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নাই। কারণ আপনারা তো ভোটে আসেননি, ডাকাতি করে এসেছেন। এখন যদি মনে করেন জোর করে ক্ষমতায় থাকবেন, তাহলে জনগণ বলতে বাধ্য হবে যে, আমরা তোমাদের চাই না।’

শনিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নাগরিক ঐক্য আয়োজিত বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

মান্না বলেন, এই সরকার অবৈধভাবে জোর করে ক্ষমতায় বসার পর থেকে রাহাজানি, গুন্ডামি ও লুটপাটের ধারা অব্যাহত রেখেছে। এই সরকার এখন প্রায় বন্ধুহীন। এই সরকার দেশের ভেতরে যাদের ওপর নির্ভর করতো, তারা এখন কেউ নাই। বিদেশে যাদের ওপর নির্ভর করতো, তারাও কেউ নাই। যেনতেনভাবে সমর্থন দেখানোর জন্য তারা সবরকম অপচেষ্টা চালাচ্ছে। একটা স্বৈরাচার, ভোট ডাকাতির সরকারকে নিরঙ্কুশ সমর্থন দেয়ার কোনো দরকার নাই। আমরা দেখছি প্রতিবেশী দেশ অশান্ত। দিল্লির দাঙ্গার খবর আপনারা পত্রিকা দেখেছেন। বিষয়টি নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। আমরা কোনো দাঙ্গাকারীর সমর্থক নই, আমরা দাঙ্গাবাজদের বিরুদ্ধে।

jagonews24

ভারতের ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আমরা বলতে পারি, ভারতের মাটিতে অন্য ধর্মেরও মানুষদের প্রতি যদি নির্যাতন হয়, তাদের উপাসনালয় ভাঙ্গা হয়, তবে সেটার প্রতিবাদ করার ক্ষমতা আমরা রাখি। আমাদের সরকারের মন্ত্রীরা চামচা। কিছু হলে ওরা বলতে চায়, ওটা তো ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কিন্তু সবই অভ্যন্তরীণ ব্যাপার নয়। তাহলে জাতিসংঘ কেন প্রস্তাব দেয়, আপনারা দুই দেশ বসে এটা সমাধান করুন। জাতিসংঘ কেন প্রস্তাব করে, গান্ধীর মতো মানুষ এখন দরকার। জাতিসংঘের মহাসচিবের কথা বলার পর ক্ষমতাসীন দলের মহাসচিব কথা বলবেন, সেটা গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। আমরা এসব ঘটনায় ভারতের পুলিশের নীরব থাকার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

‘আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমরা বন্ধুত্ব চাই কিন্তু কোনো নিগ্রহ চাই না। ধর্মের নামে খুনোখুনি আমরা কখনও পছন্দ করতে পারি না। এ বিষয়ে আমাদের সরকারের ভূমিকা থাকার কথা ছিল। কিন্তু তারা নীরব।’

মান্না আরও বলেন, সরকারের কাছে আমাদের দাবি, আমরা যত অন্যায়-অত্যাচারের কথা বলেছি, মানুষের জীবনের দুর্বিষহের কথা বলেছি, আমরা আমাদের ভোটের অধিকারের কথা বলেছি— এগুলো মানতে হবে। এগুলো না মানা হলে জনগণকে আরও বৃহত্তর আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

কেএইচ/এমএআর/এমকেএইচ