৬ নারী-শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মহিলা পরিষদের উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৫১ পিএম, ২৭ মে ২০২০

করোনা সংক্রমণের এ দুর্যোগে ঈদ উদযাপন সময়কালীন দেশের বিভিন্ন স্থানে নারী ও কন্যাশিশুদের প্রতি বর্বর সহিংসতার ছয়টি ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। পাশাপাশি এসব ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

বুধবার (২৭ মে) বিকেলে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম এবং সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু এক যৌথ বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

বিবৃতিতে তারা বলেন, গত ১৯ মে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় কিশোরীকে জোরপূর্বক অপহরণ করে ধর্ষণ। ২৪ মে ফেনীর ছাগলনাইয়ায় দারোগার হাট এলাকায় পরিবারের কেউ বাসায় না থাকার সুযোগে শিশুকে প্রতিবেশী কর্তৃক ধর্ষণ। একই দিন দিনাজপুরের হিলিতে আদিবাসী পল্লীতে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা ঘটে।

এছাড়া ২৪ মে রাতে নওগাঁর সাপাহার উপজেলার হাপানিয়া (দক্ষিণ বেলডাঙ্গা) গ্রামে স্বামী তার স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন করে মাথার চুল কেটে ন্যাড়া করে দেয় এবং যৌন নির্যাতনে গৃহবন্দী করে রাখে। পাবনার চাটমোহর উপজেলার গুনাইগাছা ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামে কবিরাজের বাড়ি থেকে ফেরার পথে সন্ধ্যায় কলেজ ছাত্রীর হাত-পা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ এবং শেরপুর জেলার সদর উপজেলার দশম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

মহিলা পরিষদ নারী ও শিশুদের প্রতি ধর্ষণ, গণধর্ষণ, যৌন নিপীড়ন এবং পারিবারিক সহিংসতার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করছে। ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণসহ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং নির্যাতনের শিকার নারী ও শিশুদের সুচিকিৎসাসহ তাদের ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানাচ্ছে।

একই সঙ্গে এ ধরনের নৃশংস, বর্বর ঘটনা প্রতিরোধে আশুকার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকার, প্রশাসনের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। সেই সঙ্গে ধর্ষণ, গণধর্ষণ, যৌন নিপীড়ন, পারিবারিক সহিংসতা এবং নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা প্রতিরোধে সকল সামাজিক শক্তিকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছে।

জেইউ/এএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]