প্রকাশ্যেই নেশা করে ওরা, দেখার কেউ নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৩৮ পিএম, ১১ আগস্ট ২০২০

মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১১টা। রাজধানীর কারওয়ান বাজারের ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের সামনে কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউর রাস্তার পাশের ফুটপাতে দাঁড়িয়ে ৭ থেকে ১২ বছর বয়সী পাঁচ শিশু। তারা আকাশের দিকে তাকিয়ে হৈ হৈ করছে। তারা এক হাত আকাশের দিকে উঁচিয়ে নাড়াচাড়া করছে, আরেক হাত দিয়ে ডান্ডি খাচ্ছে (এক ধরনের মাদক) তারা।

পাশেই একটি চায়ের দোকান। সেখানে বসে আছেন কয়েকজন। তারা বলছেন, একটু আগেই পাশ দিয়ে পুলিশ গেছে কিন্তু তাদের কিছুই বলেনি। অনেকক্ষণ আগে শিশুরা এখানে আসে। একটি আঠার কৌটা তারা পাঁচজনে পলিথিনের মধ্যে ভাগ করে নেয়। তারপর সেগুলো খাচ্ছে আর পাগলামি করছে।

Dandy-4.jpg

সেখানকার লোকজনের সঙ্গে কথা বলতে বলতে এক শিশুকে দেখা যায়, পাশের ব্যস্ত সড়কে কৌটাসহ একটি পলিথিন ছুড়ে মারে। দুই শিশু কোনো কিছু বিবেচনা না করেই সেটা কুড়াতে দৌড় দেয়। দুর্ঘটনা এড়াতে দ্রুত ব্রেক করে মিরপুরগামী একটি বাস। ভাগ্যক্রমে দুর্ঘটনার কবল থেকে বেঁচে যায় দুই শিশু।

সেখানকার লোকজনের মধ্যে একজন কয়েকবার পানি ছুড়ে মারছিল ওই শিশুদের দিকে। তারপরও তারা সেখান থেকে সরছিল না। একপর্যায়ে পাঁচ শিশুর একজন আহত অবস্থায় ফুটপাতে শুয়ে পড়ে। তাদের এমন কাণ্ড দেখে মাঝে মাঝে অল্পস্বল্প জটলাও তৈরি হচ্ছিল। কিন্তু শিশুদের ডান্ডি খাওয়া, বিপজ্জনকভাবে ছোটাছুটি থামছিল না।

Dandy-4.jpg

সেখানকার দোকানি, নিরাপত্তাকর্মী, পথচারীরা বারবার তাদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হতে দেখা যায়। তারা শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়েও হা-হুতাশ করছিলেন। নেশার ঘোরে থাকা পাঁচ শিশুর সঙ্গে কথা বলতে গেলে তারা আক্রমণাত্মক আচরণ করে।

কারওয়ান বাজার ও ফার্মগেটের ফুটপাতে থাকা এমন অনেক শিশু-কিশোর-যুবককে প্রতিদিন এভাবে প্রকাশে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ডান্ডি খেতে দেখা যায়।

পিডি/এমএসএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]