‘বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হলে ঢাকায় আবর্জনা থাকবে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৯ পিএম, ২২ আগস্ট ২০২০

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অধীনে আমিনবাজারে নির্মিতব্য দেশের প্রথম বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্ল্যান্ট স্থাপিত হলে রাজধানীর রাস্তাঘাট এবং খাল-বিলসহ যত্রতত্র ময়লা পড়ে থাকবে না বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

শনিবার (২২ আগস্ট) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আওতাধীন আমিন বাজারে ডাম্পিং স্টেশন এবং গাবতলীর মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন। স্থানীয় সরকার বিভাগের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

taijul2

মন্ত্রী বলেন, ‘বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট স্থাপিত হলে সেখানে প্রতিদিন তিন হাজার টন ময়লা-আবর্জনার প্রয়োজন হবে। এত পরিমাণ ময়লা-আবর্জনা সংগ্রহ করে বিদ্যুৎ প্ল্যান্টে দিলে ঢাকা শহরের যেখানে সেখানে ময়লা-আবর্জনার স্তুপ আর থাকবে না।’

বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পটি তার স্বপ্নের প্রকল্প উল্লেখ করে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এ প্রজেক্টে কোনো প্রকার অনিয়ম-দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না।’

taijul2

বিদেশি এক কোম্পানির সঙ্গে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে চুক্তি করা হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, চুক্তি হওয়ার ১৮ মাসের মধ্যেই বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হবে। যদিও তারা এর থেকে কিছুটা সময় বেশি চেয়েছেন। চূড়ান্ত চুক্তির সময় বিষয়টা ফয়সালা হবে।

তিনি বলেন, পরিবেশের উপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের পাশে একটি ইকোপার্কও নির্মাণ করা হবে।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনসহ দেশের সব শহরকে পরিচ্ছন্ন করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে। খুব শিগগিরই পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তোলা সম্ভব হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

taijul2

মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, শহরকে পরিচ্ছন্ন করতে বর্তমান যন্ত্রপাতির পাশাপাশি আধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজন করা হবে।

তিনি জানান, সিটি করপোরেশন আওতাধীন অবৈধ দখল হওয়া জায়গাগুলো অতিদ্রুত দখলমুক্ত করা হবে।

এ সময় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম এবং সিটি করপোরেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরএমএম/এএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]