আরও ৬ শতাধিক সাইনবোর্ড উচ্ছেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৪৫ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় অবৈধ বিলবোর্ড, সাইনবোর্ড, শপসাইন, প্রজেক্ট সাইন অপসারণে মোবাইল কোর্ট ও উচ্ছেদ অভিযান চলমান রয়েছে।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের পরিচালনায় গুলশান, বনানী ও প্রগতি সরণিতে আরও প্রায় ৬২০ অবৈধ সাইনবোর্ড উচ্ছেদ করা হয়।

এছাড়া স্পট নিলামের মাধ্যমে এসব সাইনবোর্ড ও অন্যান্য মালামাল এক লাখ ৭৯ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করা হয়। এছাড়া ফুটপাত ও সড়ক দখল করে ব্যবসা, ট্রেড লাইসেন্স না থাকা এবং অন্যান্য অপরাধে জরিমানা করা হয় ৯৭ হাজার টাকা।

jagonews24

গুলশান এভিনিউতে প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল হামিদ মিয়ার নেতৃত্বে ২৫৭টি অবৈধ সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার, প্যানাফ্লেক্স উচ্ছেদ করা হয়। এ সময় তিন প্রতিষ্ঠানকে মোট ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া অবৈধভাবে রাস্তায় পার্কিং করে রাখা ৭০টি মোটরসাইকেল সরিয়ে সড়ক জনগণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।

বনানী ১১ নম্বর সড়কে অঞ্চল-৭ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতাকাব্বীর আহমেদের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় প্রায় দুই শতাধিক সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড উচ্ছেদ করা হয়। এসব মালামাল তাৎক্ষণিক নিলামে ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়। এছাড়া সড়ক ও ফুটপাত অবৈধভাবে দখল করে জনগণের চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টির কারণে একটি প্রতিষ্ঠানকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

jagonews24

এছাড়া প্রগতি সরণির শহজাদপুরে অঞ্চল-৬ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিয়া আফরিনের পরিচালনায় উচ্ছেদ অভিযানে মোট ১৬৩টি সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদকৃত এসব বিলবোর্ড নিলামে ৭৯ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করা হয়। এছাড়া ফুটপাত ও সড়ক দখল করে ব্যবসা করা এবং ট্রেড লাইসেন্স না থাকায় চার প্রতিষ্ঠানকে ৫৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অবৈধ বিলবোর্ড, সাইনবোর্ড অপসারণে ডিএনসিসির উচ্ছেদ অভিযান ও মোবাইল কোর্ট অব্যাহত থাকবে।

এএস/এএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]