১৪ বছরের কুলসুমের বয়স ২৬ দেখিয়ে সৌদি পাঠায় এজেন্সি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:১০ পিএম, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

চাকরির জন্য সৌদি আরব গিয়ে হত্যার শিকার হয় উম্মে কুলসুম (১৪)। এ ঘটনায় তাকে সৌদি পাঠানো রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক মকবুল হোসাইন ও তার সহযোগী তারেককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তদন্তে জানা গেছে, ১৪ বছরের কুলসুমকে ২৬ বছর বয়সী দেখিয়ে বিদেশ পাঠায় এইচ এম ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামের রিক্রুটিং এজেন্সি।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর দেড়টায় রাজধানীর ফকিরাপুলে ওই রিক্রুটিং এজেন্সির কার্যালয়ে এক অভিযানে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু অভিযানের নেতৃত্ব দেন।

অভিযানের বিষয়ে তিনি বলেন, গ্রেফতাররা কুলসুম পাচারের সঙ্গে জড়িত। মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন-২০১২ এবং বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসী আইন-২০১৩ তে অভিবাসী কর্মীর অধিকার সুরক্ষার সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু কিছু কিছু রিক্রুটিং এজেন্সি আইন ভঙ্গ করে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে বিদেশে নারী ও পুরুষ কর্মী পাঠাচ্ছে। ফলে একদিকে বিদেশে বাংলাদেশের শ্রম বাজার ও ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে, অন্যদিকে আমাদের দেশের দরিদ্র অসহায় বেকার নারী-পুরুষ ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় সর্বস্ব বিক্রি করে বিদেশ গিয়ে অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিক্ষার হচ্ছে। এজন্য রিক্রুটিং এজেন্সিগুলাের অসাধু তৎপরতা দায়ী।

পলাশ কুমার বসু বলেন, গত ১১ সেপ্টেম্বর উম্মে কুলসুমের মরদেহ সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশে আসে। তিনি ২০১৯ সালের এপ্রিলে এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যমে সৌদি আরব যান। সৌদি আরবে কাজের জন্য যাওয়া ন্যূনতম বয়স ২৫ হলেও কুলসুমের বয়স ছিল ১৫ বছরের নিচে। কিন্তু স্থানীয় দালাল ও এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিক মকবুল হোসেনের প্ররোচনায় তার বয়স ২৬ বছর দেখিয়ে কুলসুমের পাসপোর্ট তৈরি করা হয়। সৌদি আরবে গিয়ে নারীকর্মী শারীরিক-মানসিক নির্যাতন ও শ্রম শোষণের শিকার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে জানা সত্ত্বেও এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিক এ বিষয়ে কুলসুমকে সতর্ক না করে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে তাকে সৌদিতে পাচার করেন।

Top

তিনি বলেন, কুলসুম নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে ভর্তি অবস্থায় ১৭ আগস্ট মারা যায়। হাসপাতালে ভর্তি হলে তার পরিবার মেয়ের সাথে যোগাযোগ করতে না পেরে স্থানীয় দালালের সঙ্গে যোগাযোগ করলে এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল তাদের প্রতি কোনো সহানুভূতি প্রদর্শন করেনি।

তিনি আরও বলেন, ফকিরাপুলের অফিসে অভিযান চালিয়ে আমরা ১০-১২ ভুক্তভোগীর অভিযোগপত্র পাই। এছাড়া এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিকের বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় মামলা রয়েছে। বর্তমানে সেই মামলা সিআইডিতে তদন্তাধীন। যেসব রিক্রুটিং এজেন্সি আইনের ব্যত্যয় করে মানবপাচারের সাথে জড়িত, তাদের সবার বিরুদ্ধে ক্রমান্বয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ম্যাজিস্ট্রেট।

উল্লেখ্য, গত ৯ আগস্ট চাকরির আশায় সৌদি আরবে গিয়ে নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে সৌদি আরবের একটি হাসপাতালে মারা যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উম্মে কুলসুম (১৪)। ১১ সেপ্টেম্বর রাতে কুলসুমের মরদেহ দেশে আনা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার নূরপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের মেয়ে উম্মে কুলসুমকে স্থানীয় দালাল রাজ্জাক মিয়ার মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকা খরচ করে ১৭ মাস আগে মেসার্স এম এইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যমে গৃহকর্মীর কাজে সৌদি আরব পাঠানো হয়। সেখানে গৃহকর্মী হিসেবে যোগদানের পর থেকেই কুলসুমের ওপর শারীরিক ও যৌন নির্যাতন শুরু করে মালিকপক্ষ। নির্যাতনের কারণে মেয়েকে ফিরিয়ে আনার জন্য রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার পরও তাদের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। গত চার মাস আগে সৌদি আরবে গৃহকর্তা ও তার ছেলে মিলে কুলসুমের দুই হাঁটু, কোমর ও পা ভেঙে দেয়। এর কিছুদিন পর একটি চোখ নষ্ট করে রাস্তায় ফেলে দেয়।

এআর/এমএসএইচ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]