ডিএসসিসির অভিযান : ৪ মামলায় সাড়ে ১২ হাজার টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৪১ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, ক্যাবল অপসারণ এবং এডিস মশার প্রজননস্থল শনাক্তকরণে ভ্রাম্যমাণ আদালতগুলোর ধারাবাহিক অভিযান চলমান রয়েছে।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) অভিযানের ২৮তম দিনে মতিঝিলের সেনা কল্যাণ ভবনের সামনে থেকে ইত্তেফাক মোড় হয়ে বঙ্গভবনের কোণা পর্যন্ত ২০টি ইলেকট্রিক পোল হতে অবৈধ ক্যাবল অপসারণ করা হয়।

এ সময় ফুটপাতের উপর অবৈধভাবে স্থাপিত দুটি টং দোকান গুঁড়িয়ে দেয়া হয় এবং দুজনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন-২০০৯ এর ৯২ ধারার ৭ উপধারা মোতাবেক সাড়ে ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এছাড়া করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদ আজ ধানমন্ডি ৩ নম্বর থেকে ৯/এ সড়কের স্টার কাবাব পর্যন্ত রাস্তার বাঁ পাশের ২০টি ইলেকট্রিক পোল হতে সকল ক্যাবল অপসারণ করেন।

পরবর্তীতে ইরফান উদ্দিন আহমদের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের সামনের ফুটপাত দখল করে পরিচালিত হওয়া প্রায় অর্ধশতাধিক দোকান উচ্ছেদ করা হয়। এ সময় দুটি স্থাপনার বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের এবং স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন-২০০৯ এর ৯২ নম্বর ধারার ৭ উপধারা মোতাবেক ৭ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এদিকে ২৫তম দিনে অঞ্চল-২ এর ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ডিএসইসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফেরদৌস ওয়াহিদের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত এডিস মশার প্রজননস্থল শনাক্তকরণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় তিনি ৩০টি স্থাপনা পরিদর্শন করেন এবং ২টি স্থাপনায় এডিস মশার বংশ বিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়ায় একজনকে সতর্ক করেন এবং পরিবেশের উন্নতি সাধন করা হবে মর্মে মুচলেকা প্রদান সাপেক্ষে আরেকজনকে সতর্ক করেন।

ডিএসসিসির ৩টি ভ্রাম্যমাণ আদালত আজ সবমিলিয়ে মোট ৪টি মামলা দায়ের ও নগদ ১২ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এএস/এফআর/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]