গাড়িচালক মালেকের সঙ্গে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের সংশ্লিষ্টতা নেই

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৪:১৩ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

স্বাস্থ্য অধিদফতরের বরখাস্ত হওয়া গাড়িচালক আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযােগের সাথে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর বা স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) ড. মোস্তফা খালেদ আহমেদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের অধীনে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর গঠিত হয়। অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হােসেন গত ৩১ ডিসেম্বর মহাপরিচালক হিসেবে যােগদান করেন। গাড়িচালক আব্দুল মালেককে গত ১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে প্রেষণে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরে ন্যস্ত করা হয়।

প্রতিষ্ঠার সময় থেকে আজ পর্যন্ত নবগঠিত স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর কোনো ধরনের কেনাকাটা, কর্মচারী নিয়ােগ, পদায়ন বা পদোন্নতির কাজ করেনি। কাজেই গাড়িচালক আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযােগের সাথে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর বা স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের কোনো পরিবহন পুল নেই। মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযােগের দায় তার ব্যক্তিগত।

উল্লেখ্য, গত ২১ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক প্রশাসন ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম স্বাক্ষরিত এক আদেশে আব্দুল মালেককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আদেশে বলা হয়, যেহেতু স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাড়িচালক (প্রেষণে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরে কর্মরত) আব্দুল মালেককে ২০ সেপ্টেম্বর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গ্রেফতার করেছে, সেহেতু বিএসআর পার্ট-১ এর ৭৩ বিধি (নোট-২) ধারা মোতাবেক তাকে ওই দিন থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো। সাময়িক বরখাস্তের সময় তিনি আইন অনুযায়ী খোরপোষ ভাতা পাবেন।

এমইউ/এমএসএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]