ডিএসসিসির উচ্ছেদ অভিযান : মামলা-জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪১ পিএম, ০৮ অক্টোবর ২০২০

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, ক্যাবল অপসারণ এবং সঠিক লেনে গাড়ি চলাচল তদারকি বিষয়ক ধারাবাহিক অভিযান অব্যাহত আছে।

বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. রাসেল সাবরিন, সম্পত্তি কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মুনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের মোড় হতে আনন্দবাজার হয়ে ঢাকা মেডিকেল, বঙ্গ বাজার ফ্লাইওভারের নিচের মোড় থেকে বঙ্গ বাজার সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল মোড় পর্যন্ত অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ করা হয়।

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত ৯টি মামলা ও স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯ এর ৯২ ধারার ৭ উপ-ধারা অনুযায়ী ২৩ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত কিছু সময় সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের সামনে সঠিক লেনে গাড়ি চলাচল করছে কিনা তা তদারকি করেন।

DSCC

এদিকে করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত অবৈধ স্থাপনার বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন।

তিনি আজ বাটা সিগন্যাল হতে গাউছিয়া মার্কেট অংশে ফুটপাত দখল করে দোকান বর্ধিত করায় একটি হোটেল, একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ও একটি পর্দার দোকানের বিরুদ্ধে তিন মামলা দায়ের এবং বর্ধিতাংশ উচ্ছেদ করেন। অভিযানকালে আদালত স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯ এর ৯২ ধারার ৭ ও ৮ উপ-ধারা অনুযায়ী ২৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন।

৪১তম দিনে নিয়মিত উচ্ছেদ কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় করপোরেশনের চারটি ওয়ার্ডের দুটি ভ্রাম্যমাণ আদালত অবৈধ ক্যাবল সংযোগ অপসারণে অভিযান পরিচালনা করেন।

করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ কাজী ফয়সালের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৭, ১৮ ও ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাটাবন, বাটা সিগন্যাল ও হাতিরপুল এলাকায় প্রায় ৭৫০ মিটার অংশে অবৈধ ক্যাবল অপসারণ করেন। একই সময়ে করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফেরদৌস ওয়াহিদের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের শহীদ নজরুল ইসলাম সরণি, সিদ্দিক বাজার এলাকায় ১৯টি ইলেকট্রিক পোল হতে অবৈধ ক্যাবল অপসারণ করেন।

সব মিলিয়ে করপোরেশনের চারটি ভ্রাম্যমাণ আদালত আজ প্রায় অর্ধ লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় ও ১২টি মামলা দায়ের করেন।

এএস/এএইচ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]