আলিয়া মাদরাসার পাশের মাঠ জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৮ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০২০

বকশিবাজারের সরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া সংলগ্ন মাঠটি উন্নয়ন করে তা এলাকার জনগণের জন্য নান্দনিক খেলার মাঠ হিসেবে উন্মুক্ত করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

বুধবার (২১ অক্টোবর) পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগার ও আলিয়া মাদরাসা সংলগ্ন খেলার মাঠ এবং কেন্দ্রীয় কারাগার ঘিরে গৃহীত প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মেয়র এ কথা জানান।

আলিয়া মাদরাসা সংলগ্ন মাঠ ও পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার ঘিরে কারা কর্তৃপক্ষের গৃহীত পরিকল্পনা সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করার পর ডিএসসিসি মেয়র বলেন, পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগার এবং আলিয়া মাদরাসা সংলগ্ন মাঠ ও পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগার ঘিরে কারা কর্তৃপক্ষের গৃহীত পুরো প্রকল্পের অনুষঙ্গগুলোর আদ্যোপান্ত আমি গতকাল অবলোকন করেছি। প্রকল্পে কিছু পরিবর্তন আনা সমীচীন হবে বলে আমি মনে করি। কারণ প্রধানমন্ত্রী চান, এখানে নান্দনিক পরিবেশ বিরাজ করুক, উন্মুক্ত খেলার মাঠ থাকুক। এই মাঠকে উন্মুক্ত খেলার মাঠ হিসেবে খুলে দেয়ার জনদাবি রয়েছে। আমি জনগণের সেই দাবির সাথে সহমত পোষণ করছি।

এলাকার জনগণের মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নে এই মাঠ উন্মুক্ত করা হবে জানিয়ে তাপস বলেন, কারা কর্তৃপক্ষ চাইলে এই মাঠের উন্নয়ন করতে পারেন নতুবা আমরা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকেও এই মাঠের উন্নয়ন করে এলাকার জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দিতে পারি। আমাদের প্রধান বিবেচ্য বিষয় হলো, এ এলাকার জনগণ যেন এই মাঠের সুবিধা ভোগ করতে পারে।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, প্রকল্পটি এমনভাবে বাস্তবায়ন করা হবে যেন আমাদের নতুন প্রজন্ম জানতে পারে, উপলব্ধি করতে পারে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতা কী পরিমাণ ত্যাগে এই দেশকে স্বাধীন করেছেন।

ডিএসসিসি মেয়র প্রকল্পের আওতায় কারাগার ঘিরে থাকা ইতিহাস-ঐতিহ্যও সংরক্ষণ করা হবে বলে জানান।

পরে মেয়র ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের চিত্রামহল পার্কের চলমান উন্নয়ন কার্যক্রম, ৩৮-৪১-৪২ নম্বর ওয়ার্ডস্থ ধোলাইখালের বিভিন্ন এলাকা এবং ৪২ নম্বর ওয়ার্ডের ডিআইটি মার্কেট, পানির ট্যাংক ও সিটি করপোরেশন মার্কেট পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে মেয়রের সাথে ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম, দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর মো. বদরুল আমিন, প্রধান প্রকৌশলী রেজাউর রহমান, সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এএস/এইচএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]