বীথি খুঁজছেন বেনারসি, তানিয়া পাঠ্যবই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫৩ এএম, ২৪ নভেম্বর ২০২০
পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া তানিয়া বইয়ের ছড়াগুলো ভোলেনি, গল্পগুলো ঠিকঠাক আবার বলতে পারবে সে; কিন্তু যে বইগুলো তাকে এসব শেখাল, বস্তির আগুনে পুড়ে গেছে সব। সাততলা বস্তি, মহাখালী, ঢাকা। ছবি: মুসা আহমেদ

মাত্র দুই মাস আগে প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন বীথি রানী। সুখের সংসার পেতেছিলেন মহাখালীর সাততলা বস্তিতে। আগুন তার সংসারের সব পুড়ে ছাই করে দিয়েছে। আজ সকাল ৭টার দিকে পুড়ে যাওয়া আসবাবপত্রের ভেতর থেকে বিয়ের বেনারসি শাড়িটি বের করেন তিনি।

শাড়িটি পুড়ে যাওয়ায় কান্নায় ভেঙে পড়েন বিথী রানী। তিনি বলেন, তার ঘরে অবশিষ্ট আর কিছু নেই। আগুন সব কেড়ে নিয়েছে। আজ দিনে কী খাবেন সেই টাকাও তাদের কাছে নেই।Bithi-2বীথি রানীর বিয়ের শাঁখা দুটি পোড়েনি, পুড়েছে বিয়ের বেনারসি। সাততলা বস্তি, মহাখালী, ঢাকা। ছবি: মুসা আহমেদ

মহাখালীর একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী তানিয়া। গতকাল রাত ১০টা পর্যন্ত পড়াশোনা করে ঘুমিয়েছিল সে। রাতে ঘরে আগুন লাগার পর পরিবারের সবার সঙ্গে বের হয়। কিন্তু বইগুলো সঙ্গে নিতে পারেনি।

আজ সকালে ঘরে ফিরে বইগুলো খুঁজে বের করে তানিয়া। দেখা যায়, অধিকাংশ বই পুড়ে গেছে। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তানিয়া তার মাকে বলে, ‘আমার বইগুলো পড়ে গেছে মা।’

Bithi-3

মহাখালীর সাততলা বস্তিতে আগুনে রায়হান মন্ডলের মুদি দোকান এবং বসতঘর পুড়েছে। আজ সকালে সূর্য ওঠার পর দোকানের ভেতর পুড়ে যাওয়া মালামাল ঘাঁটাঘাঁটি করছিলেন তিনি।

রায়হান জাগো নিউজকে বলেন, ‘এই বস্তিতে দোকানের পেছনেই আমার বসতঘর ছিল। রাত সাড়ে ১১টার দিকে দোকান বন্ধ করে বাসায় ছেলেমেয়েদের নিয়ে ভাত খাচ্ছিলাম। এ সময় বস্তিতে আগুন-আগুন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সবাই দিগ্বিদিক ছোটাছুটি শুরু করেন। মুহূর্তমধ্যে পুরো বস্তিতে আগুন লেগে যায়। আগুন নেভানোর কোনো ব্যবস্থা বস্তিতে ছিল না। কোনোক্রমে পরিবারের সবাইকে নিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে যাই। সকালে সূর্য ওঠার পর দেখি বসতঘর এবং দোকানের কোনো অস্তিত্ব নেই।’


ফায়ার সার্ভিসের তেজগাঁও স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মাহমুদুল হাসান জাগো নিউজকে বলেন, সাততলা বস্তির ওই অংশের ৬০ থেকে ৭০টি দোকান পুড়ে গেছে। তবে আগুন লাগার কারণ এখনও স্পষ্ট জানা যায়নি, তদন্ত চলছে।

তিনি বলেন, রাত ১১টা ৪৫ মিনিটে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১২টি ইউনিট এক ঘণ্টার মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

Bithi-4

এমএমএ/বিএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]