বকেয়া বেতন চাওয়ায় ৪ কর্মী কর্মচ্যুত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০০ পিএম, ২৪ জানুয়ারি ২০২১

বকেয়া বেতনের দাবিতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার দফতরে হামলার অভিযোগে ৪ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে কর্মচ্যুত করা হয়েছে।

রোববার সংস্থাটির সচিব আকরামুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানানো হয়।

কর্মচ্যুতরা হলেন- ডিএসসিসির অঞ্চল-৫ এর ৫১ নম্বর ওয়ার্ডে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধীন কর্মরত (স্কেলভুক্ত) পরিচ্ছন্নতাকর্মী মো. হারুন মিয়া, দৈনিক মজুরিভিত্তিক পরিচ্ছন্নতাকর্মী (ট্রাক) মো. আলী মিয়া, অঞ্চল-২ এর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধীন কর্মরত পরিচ্ছন্নতাকর্মী (ট্রাক) মোহাম্মদ আলী সোহরাব ও অঞ্চল-১ এর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধীন দৈনিক মজুরিভিত্তিতে কর্মরত শ্রমিক মো. হাসু। এ ছাড়া এ হামলায় ইঙ্গিত দেয়ার অভিযোগে ডিএসসিসির স্ক্যাভেঞ্জার্স অ্যান্ড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সভাপতি এম এ গনি ও সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল লতিফকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।

অফিস আদেশে আরও বলা হয়, গত ২০ জানুয়ারি বিকেলে ওই চারজনসহ ৩৫ থেকে ৪০ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার দফতরে উপস্থিত হন। তারা তাদের বেতন সংক্রান্ত বিষয়ে বাগবিতণ্ডা করেন। এক পর্যায়ে প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার ব্যক্তিগত সহকারী মো. আলী হোসেনকে মারধর করেন, যা আইনশৃঙ্খলা পরিপন্থী। তাই তাদের কর্মচ্যুত করা হলো।

পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের অভিযোগ, কয়েক মাস ধরে তাদের বেতন দেয়া হচ্ছে না। এতে তাদের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। কবে নাগাদ বেতন দেয়া হবে সে বিষয়ে খোঁজ নেয়ার জন্যই শ্রমিকরা হিসাব বিভাগে গিয়েছিলেন। কিন্তু কাউকে মারধর করেননি।

জানতে চাইলে স্ক্যাভেঞ্জার্স অ্যান্ড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ বলেন, কর্মীদের বেতন দিতে দেরি হচ্ছে। সে কারণে তারা হিসাব বিভাগে গিয়ে যোগাযোগ করলে সেখানে একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়। এ কারণে চার কর্মীকে কর্মচ্যুত করা হয়েছে। আশা করি ডিএসসিসি এ আদেশ প্রত্যাহার করে নেবে।

এদিকে ডিএসসিসিতে মশক নিধন কাজে দৈনিক মজুরিভিত্তিতে কর্মরতরা কয়েক মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ৫ জানুয়ারি তারা সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সচিবে দফতরের সামনে অবস্থান ও বিক্ষোভ করেছিলেন।

এমএমএ/জেএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]