প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় কাজ করছে সরকার

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:০৬ পিএম, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেছেন, ‘দেশের প্রাণ-প্রকৃতিকে সবুজ-শ্যামলে ভরিয়ে দিতে কাজ করছে সরকার।’

মন্ত্রী বলেন, ‘মুজিববর্ষে অঙ্গীকার করি, সোনার বাংলা সবুজ করি’ প্রতিপাদ্যে এবার জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষ মেলা ২০২১ উদযাপিত হবে। এর মাধ্যমে জনগণের কাছে বার্তা পৌঁছে দেয়া হবে। সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের সম্মিলিত অংশগ্রহণের মাধ্যমেই আমরা দেশকে সবুজে শ্যামলে ভরে দিতে সক্ষম হব।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা ২০২১ এবং জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা ২০২১ উদযাপনের প্রাক-প্রস্তুতিমূলক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও দারিদ্র বিমোচন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, আর্থ-সামাজিক উন্নয়নসহ পরিবেশ উন্নয়নে দেশের সর্বত্র ব্যাপক হারে বৃক্ষরোপণ করা হচ্ছে। এ বৃক্ষরোপণ অভিযানকে গতিশীল রাখার লক্ষ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন গ্রহণ করে বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা এবং জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা- এ দুটি কর্মসূচিই ৫ জুন উদ্বোধন করা হবে।

মন্ত্রী জানান, পরিবেশমেলা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এবং বৃক্ষমেলা বাণিজ্য মেলার মাঠে আয়োজন করা হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড ফর ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন ২০২০, বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার ও জাতীয় পরিবেশ পদক ২০১৯ ও ২০২০ প্রদানসহ সামাজিক বনায়নের উপকারভোগীদের মাঝে চেক বিতরণ করা হবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় এ বিষয়ে আলোচনা অনুষ্ঠান আয়োজন, জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হবে। বৃক্ষরোপণ অভিযান সম্পর্কে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার নিমিত্ত ব্যাপক প্রচার ছাড়াও শহরের উল্লেখযোগ্য স্থানে ব্যানার স্থাপন করা হবে। শিক্ষার্থীদের মাঝে পরিবেশ সংরক্ষণ ও বৃক্ষরোপণের গুরুত্ব তুলে ধরার জন্য চিত্রাঙ্কন, রচনা প্রতিযেগিতার আয়োজন করা হবে।

সভায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, সচিব জিয়াউল হাসান, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মাহমুদ হাসান, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) আহমদ শামীম আল রাজী, অতিরিক্ত সচিব (পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ) মো. মনিরুজ্জামান, পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. এ কে এম রফিক আহাম্মদ, বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমির হোসাইন চৌধুরীসহ ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এমইউ/এএএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]