জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:০৯ পিএম, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিনের সঙ্গে ইংল্যান্ডের ‘মিনিস্টার অব স্টেট ফর বিজনেস, এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন গ্রোথ’ এন মেরি ট্রেভেলিয়ানের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ কমানো এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা সংক্রান্ত বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ড একসঙ্গে কাজ করার বিষয়ে একমত পোষণ করেছে।

মন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। মন্ত্রী এসময় উন্নত দেশ হিসেবে প্যারিস এগ্রিমেন্ট বাস্তবায়নে যুক্তরাজ্যের অধিকতর সহযোগিতা কামনা করেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিনের সঙ্গে ভার্চুয়াল সভায় দু’জন বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ করেন। এ সময় জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলাসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করেন তারা। আলোচনাকালে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব রোকনুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

বনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেন, ‘স্বীকৃতি দেয়ার পর থেকেই ইংল্যান্ড বাংলাদেশকে অব্যাহত সমর্থন জুগিয়ে যাচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলা এবং পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করছে।’

আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দিচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমানে ‘ক্লাইমেট ভালনারেবলিটি ফোরাম’ এর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও 'গ্লোবাল সেন্টার অব অ্যাডাপটেশন' এর আঞ্চলিক অফিস ঢাকায় স্থাপনের ফলে এ বিষয়ক কার্যক্রম পুরোদমে শুরু হয়েছে।

সভায় আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য মিনিস্ট্রিয়াল ইভেন্টে আমন্ত্রণের জন্য পরিবেশমন্ত্রী এন মেরি ট্রেভেলিয়ানকে ধন্যবাদ জানান। সভায় দুই দেশের সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করে ভবিষ্যতে একসঙ্গে এগিয়ে যাওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

এমইউ/এএএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]