ভিকারুননিসার তিন অভিভাবক প্রতিনিধির বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৫০ পিএম, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১
প্রতীকী ছবি

রাজধানীর বেইলি রোডের ভিকারুননিসা নূন স্কুল ক্যাম্পাস সীমানায় ৫০ বছর ধরে গড়ে তোলা হয়েছে ‘ফকরুদ্দিন বিরিয়ানি’ হাউজের প্রধান অফিস। সম্প্রতি অফিস ভাড়ার চুক্তি শেষ হলে গভর্নিংবডির (জিবি) তিন অভিভাবক প্রতিনিধিকে ঘুষ না দিলে তাদের উচ্ছেদ করার ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও জিবি সভাপতিকে লিখিতভাবে অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

অভিযোগে বলা হয়েছে, ভিকারুননিসা স্কুলের চতুর্থশ্রেণির কর্মচারী ফকরুদ্দিন ৫০ বছর আগে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ফকরুদ্দিন বিরিয়ানি প্রতিষ্ঠা করেন। শুরু থেকে ভিকারুননিসার বেইলি রোড মেইন ক্যাম্পাসের ১১ নম্বর গেটের পাশে তাদের প্রধান অফিস নির্মাণ করা হয়। চুক্তিনামা অনুযায়ী বর্তমানে মেয়াদ শেষ হওয়ায় কলেজ শাখার অভিভাবক প্রতিনিধি এবি এম মনিরুজ্জামান খোকন, মাধ্যমিক শাখার সদস্য ছিদ্দিক নাছির উদ্দীন ও ওহিদুজ্জামান মন্টু নতুন করে নবায়নসহ বিল পরিশোধে সাড়ে ৩৮ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছেন।

এতে বলা হয়েছে, ফকরুদ্দিন বিরিয়ানির সিনিয়র ম্যানেজার মুজিবর রহমানের কাছে দুই দফায় ৩৫ লাখ টাকা চাঁদা চাওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে তাদের কাছে তথ্য-প্রমাণ রয়েছে। এ টাকা না দিলে তাদের উচ্ছেদ করার হুমকি দেয়া হয়েছে।

পাশাপাশি বিভিন্ন সময়ে এ স্কুলের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে খাবার বিক্রি ও সাজসজ্জা সংক্রান্ত পাওয়া ৩২ লাখ টাকার বিল ছাড়ের জন্য সাড়ে তিন লাখ টাকা দাবি করা হয়।

জানা গেছে, এই তিনজন অভিভাবক প্রতিনিধির সদস্যরা বৈধ প্রক্রিয়ায় দরপত্র দাখিল ছাড়াই স্কুলের বিভিন্ন জিনিস কেনাকাটা ও কাজ করেন। অর্থছাড় দিতে হওয়ায় গতকাল বুধবার অধ্যক্ষের অফিস কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেন। পরে জিবির সভাপতি খলিলুর রহমানকে নালিশ করা হলে সেই তালা খুলে দেয়া হয়। তবে এ ঘটনায় অধ্যক্ষ তাদের উপর চরম ক্ষিপ্ত হন বলে জানান শিক্ষকরা। এই তিন সদস্যের বিরুদ্ধে ভর্তি বাণিজ্যেরও অভিযোগ রয়েছে।

জানতে চাইলে ফকরুদ্দিন বিরিয়ানির সিনিয়র ম্যানেজার মুজিবর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, ‘চুক্তিপত্র অনুযায়ী আমাদের অফিসের নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ায় গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর স্কুল থেকে চিঠি দিয়ে যোগাযোগ করতে বলা হয়। এরপর তৎকালীন অধ্যক্ষ ফওজিয়ার সঙ্গে দেখা করলে তিনি জিবি সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।’

তিনি বলেন, ‘এরপর আমি তিন জিবি সদস্য খোকন, নাসির ও মন্টুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করি। নতুনভাবে চুক্তি করতে তারা আমার কাছে দুই দফায় ৩৫ লাখ টাকা দাবি করেন। এর বিনিময়ে তদের ছয় মাসের বকেয়া ভাড়া ৩০ লাখ টাকা মওকুফ করার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। স্কুলের কাছে আমাদের বকেয়া বিলের জন্য তাদের ঘুষ দিতে বলা হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বর্তমানে জিবির এই তিন প্রতিনিধি টাকা আদায় করতে আমাদের উচ্ছেদসহ নানাভাবে ভয়-ভীতি দেখাচ্ছেন। বাধ্য হয়ে রমনা থানায় জিডি করেছি। অধ্যক্ষ ও জিবির বর্তমান চেয়ারম্যান ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার খলিলুর রহমানের কাছে লিখিতভাবে এ বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিভাবক প্রতিনিধির সদস্য মনিরুজ্জামান খোকন, ছিদ্দিক নাছির উদ্দীন কিছু বলতে রাজি না হলেও ওহিদুজ্জামান মন্টু জাগো নিউজকে বলেন, ‘কয়েকজন ব্যক্তি চক্রান্ত করে এসব অপপ্রচার করছে, আমরা তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘ফকরুদ্দিন বিরিয়ানির অফিস ভাড়া দেয়া জমিতে নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে বলে তাদের সঙ্গে আর নতুন ভাড়ার চুক্তি করা হবে না জানালে তারা আমাদের কয়েকজনের বিরুদ্ধে অপপ্রচার শুরু করেছে।’

জানতে চাইলে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহার জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে খতিয়ে দেখা হবে।’

এমএইচএম/ইএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]