‘অর্থ-সময় মামলা মোকদ্দমায় ব্যয় না করে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগান’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:০৩ পিএম, ০৪ মার্চ ২০২১

আদালতে মামলা-মোকদ্দমা করে একে অপরকে হয়রানি এবং অর্থ, সময় এবং শ্রম ব্যয় না করে তা দেশের উন্নয়নে কাজে লাগাতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘অ্যাক্টিভিটিস ভিলেজ কোর্ট’ প্রকল্পের ‘প্রজেক্ট রিফ্লেকশন ওয়ার্কশপ’ এ প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ আহ্বান জানান।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, গ্রাম আদালতের কার্যক্রম জোরদারকরণ, গতিশীলতা আনয়ন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে বিভিন্ন মামলার জট কমিয়ে আনতে কাজ করছে সরকার। মামলা নিষ্পত্তি করতে যেখানে সংস্কার দরকার তা করা হবে। ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ এবং উপজেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলে সমন্বিতভাবে কাজ করলে যে কোনো সমস্যা সমাধান করা সম্ভব।

তাজুল ইসলাম বলেন, মাত্র ৮৪ ডলারের মাথাপিছু আয়ের দেশ এখন দুই হাজার ডলার ছাড়িয়েছে। ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ করতে হলে প্রয়োজন সাড়ে ১২ হাজার ডলার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এর আগেই নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছে যাবে।

তিনি বলেন, সকল শ্রেণির মানুষের সমন্বিত উদ্যোগে সমাজে বিদ্যমান সকল অনিয়ম-অবিচার, অসঙ্গতি দূর করে সমাজকে কুলষিতমুক্ত করতে হবে। দুর্নীতি বা অসদুপায় অবলম্বন করা ছাড়াও ভালোভাবে বাঁচা এবং জীবনে উন্নতি করা সম্ভব। সবার সদিচ্ছায় পারে বাংলাদেশের চেহারা পরিবর্তন করে দিতে। দেশের মানুষ এক হয়ে উন্নয়নের জন্য কাজ করছে বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, জনপ্রতিনিধি, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বা কর্মচারীসহ সকল স্তরের মানুষের জবাবদিহিতা না থাকলে ভালো ফল আসার সম্ভাবনা থাকে না। এজন্য সবার আগে সবক্ষেত্রে জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএনডিপি বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জি, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেন্সজে তেরিংক। এতে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এবং স্বাগত বক্তৃতা করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্প পরিচালক মরণ কুমার চক্রবর্তী।

আইএইচআর/এএএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]