থাইল্যান্ড-মিয়ানমার হয়ে বাংলাদেশে ১০ কোটি টাকার মাদক ‘আইস’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৪ পিএম, ০৪ মার্চ ২০২১

ব্যয়বহুল মাদক ‘আইস’। ইয়াবার চেয়েও ভয়াবহ এটি। এই মাদক থাইল্যান্ড থেকে মিয়ানমার হয়ে বাংলাদেশে এসেছে। জব্দ করা হয়েছে মাদকগুলো। যার আনুমানিক বাজারমূল্য ১০ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) বিকেলে সেগুনবাগিচায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) মো. আহসানুল জব্বার।

তিনি জানান, টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন জাদিমুড়া এলাকার একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে দুই কেজি ওজনের এই চালানটি জব্দ করা হয়। চালানটি থাইল্যান্ড থেকে মিয়ানমার হয়ে বাংলাদেশে আসে। এটির গন্তব্য কোথায় ছিল তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। বিষয়টি তদন্তসাপেক্ষে জানা যাবে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর বলছে, চালানটি ধরতে প্রায় ছয় মাস ধরে গোয়েন্দা তৎপরতা চালানো হয়। অবশেষে বুধবার (৪ মার্চ) আইসের চালানটি জব্দসহ মো. আব্দুল্লাহ (৩১) নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়।

jagonews24

তিনি জানান, এখন পর্যন্ত এটাই আইসের জব্দকৃত সবচেয়ে বড় চালান। আব্দুল্লাহকে গ্রেফতার করা হলেও মাদকে সংশ্লিষ্টতায় তার আরেক ভাই রহমান পলাতক রয়েছেন।

এর আগে ২০১৯ সালে ঢাকার ভাটারা থানা এলাকা থেকে ৫২০ গ্রাম ওজনের একটি চালান জব্দ করা হয়েছিল।

এটি ধনী শ্রেণির মাদক উল্লেখ করে ডিজি বলেন, ইয়াবার চেয়েও ভয়াবহ নতুন মাদক ক্রিস্টার মেথামফিটামিন বা আইস। এটি প্রায় ১০০ গুণ বেশি শক্তিশালী। নাক দিয়ে, ধোঁয়া বা ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে গ্রহণ করা হয়। এটি অনেক বেশি ব্যয়বহুল হওয়ায় সাধারণত ধনি শ্রেণিরাই এর ক্রেতা।

বাংলাদেশে এখনো এই মাদকের ভোক্তার সন্ধান পাওয়া যায়নি জানিয়ে তিনি বলেন, এর আগে দেশে কয়েকবার এর বাজার সৃষ্টির চেষ্টা করা হয়। তবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের অভিযানে সেই চেষ্টা নস্যাৎ হয়।

টিটি/জেডএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]