ডিএমপির শিক্ষাবৃত্তি তহবিলে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের অনুদান

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩০ পিএম, ০৪ মার্চ ২০২১

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) পরিবারের মেধাবী সন্তানদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণ ও শিক্ষা সহায়তা হিসেবে সংস্থার শিক্ষাবৃত্তি তহবিলে সাত লাখ ৮০ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছে মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) ডিএমপি সদরদফতরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই অনুদানের চেক গ্রহণ করেন ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস্) কৃষ্ণ পদ রায়। মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের পক্ষ থেকে চেক হস্তান্তর করেন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী (সিইও) মো. কামরুল ইসলাম চৌধুরী।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের এই আর্থিক সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে কৃষ্ণপদ রায় বলেন, এমন একটি মহৎ কাজের জন্য ডিএমপি ও মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড দুই সংস্থা এক হয়েছি। ডিএমপির একটি নিজস্ব শিক্ষাবৃত্তি প্রকল্প রয়েছে। মার্কেন্টাইল ব্যাংক ডিএমপির এ শিক্ষাবৃত্তি প্রকল্পকে সমৃদ্ধ করেছে এবং তারাও নিজ উদ্যোগে কাজ করছে। ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা উদ্যোক্তা প্রয়াত আবদুল জলিল (সাবেক এমপি) শুধু মুক্তিযোদ্ধাই ছিলেন না। মুক্তিযুদ্ধে তার অবদান ছিল অনস্বীকার্য। সামাজিক ও মানবিক দায়িত্ব হিসেবে ধারাবাহিকভাবে ডিএমপিকে মার্কেন্টাইল ব্যাংক সহযোগিতা করছে। মার্কেন্টাইল ব্যাংকের এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই। তারা আমাদের ভালো কাজের সঙ্গে আগেও ছিল এবং ভবিষ্যতেও থাকবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

তিনি আরও বলেন, এই শিক্ষাবৃত্তি আমাদের পুলিশ সদস্যদের সন্তানদের লেখাপড়ার সহায়তা করছে। মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের এই সহযোগিতার জন্য পরিচালনা পর্ষদকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের এমডি ও সিইও মো. কামাল হোসেন বলেন, সমাজের কল্যাণে আমাদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত আবদুল জলিলের উদ্দেশ্য ছিল সাধারণ মানুষকে নিয়ে। তারই প্রতিফলন হিসেবে এই মহতি উদ্যোগ। মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়াটা মহৎ কাজ। আমরা এই কাজে সবসময় আপনাদের পাশে আছি।

এ সময় ডিএমপির উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

টিটি/এইচএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]