বঙ্গবন্ধু তার ভাষণে মুক্তির কথা বলেছেন : বিদায়ী দুদক চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৩১ পিএম, ০৭ মার্চ ২০২১
ফাইল ছবি

ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণকে নিপীড়িত মানুষের আর্থ-সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তির এক অনবদ্য আহ্বান বলে মন্তব্য করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের বিদায়ী চেয়ারম্যান ড. ইকবাল মাহমুদ।

রোববার (৭ মার্চ) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে ঐতিহাসিক এই ভাষণের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘এ ভাষণের প্রতিটি শব্দই তাৎপর্যপূর্ণ। একটি তর্জনী একটি দেশের স্বাধীনতার প্রতীক হয়ে উঠবে এমনটি আমি অন্য কোনো ভাষণে দেখি নাই। এই তর্জনী আজ বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তার ভাষণে মুক্তির কথা বলেছেন। যুদ্ধ থেকে শান্তি, অতীত থেকে ভবিষ্যৎ সবই বলেছেন। তাইতো ৫০ বছর আগের এ ভাষণ আজ যখন বাজে, তখন আমাদের রক্তে অনুরণন ঘটে। এটা চিরঞ্জীব, প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে চিরভাস্বর হয়ে থাকবে।’

আলোচনা সভায় দুদক কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, ‘৭ মার্চের ভাষণটি ছিল অলিখিত, জাতির পিতার হৃদয় থেকে উৎসারিত। এই ভাষণে ইতিহাস, সংগ্রাম, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, যুদ্ধের কৌশল, ভাষা ঐতিহ্য সবই ছিল।’

দুদক কমিশনার এ এফ এম আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘জাতির পিতা এক সময় মন্ত্রী হিসেবে দুর্নীতি দমন ব্যুরোর দায়িত্বে ছিলেন। তাই প্রতিষ্ঠান হিসেবে দুদকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আদর্শবান কর্মী হিসেবে অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের মাধ্যমে দেশ সেবায় আত্মনিয়োগ করতে হবে।’

দুদক সচিব ড. মুহা. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, ‘ঐতিহাসিক এই ভাষণ আজ শুধু জাতীয় সম্পদ নয়, এটা আজ আন্তর্জাতিক সম্পদে পরিণত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে হবে। আচার-আচরণে ইতিবাচক হওয়া উচিত। নেতিবাচক মানসিকতার কারণেই ভালো কাজেরও সমালোচনা হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সামান্য ত্রুটিকে বড় করে দেখা হয়।’

আলোচনাসভায় আরও বক্তব্য দেন- দুদকের মহাপরিচালক আ ন ম আল ফিরোজ, পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা, ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক মো. আকতার হোসেন, উপ-পরিচালক নাজমুস সাদাত, মো. রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এসএম/এমআরআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]