যেনতেন প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দ দিলে চলবে না : কৃষিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৩৩ পিএম, ০৭ মার্চ ২০২১

কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনকে (কেজিএফ) বরাদ্দপ্রাপ্ত অর্থের যথাযথ ও সুষ্ঠু ব্যবহারের নির্দেশ দিয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, সরকার কেজিএফকে যে উদ্দেশ্যে অর্থ বরাদ্দ দিয়েছে-সে লক্ষ্য অর্জনে অর্থের যথাযথ ও সুষ্ঠু ব্যবহার করতে হবে। প্রকল্প গ্রহণে অত্যন্ত সতর্ক হতে হবে। যেনতেন প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দ দিলে চলবে না।

রোববার (৭ মার্চ) রাজধানীতে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে কেজিএফ আয়োজিত ‘সার্বিক অগ্রগতি এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা’ বিষয়ক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, একসময় দেশে গবেষণার প্রায় পুরোটাই ছিল বিদেশি সাহায্য নির্ভর। কিন্তু বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার কৃষি গবেষণার পাশাপাশি কৃষির উন্নয়নে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে উদারভাবে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ দিচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, পর্যাপ্ত বরাদ্দ রয়েছে সেজন্য এখন প্রযুক্তিতে বিদেশ নির্ভরতা কমাতে হবে। গবেষণা সম্প্রসারণের মাধ্যমে লাগসই দেশীয় প্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে হবে। চাষাবাদ, উপকরণ ব্যবহার ও অর্গানিক পদ্ধতিতে উৎপাদনসহ সকল কৃষিপ্রযুক্তি নিজেদেরকে আরও বেশি উদ্ভাবন ও তা দ্রুততার সঙ্গে সম্প্রসারণ করতে হবে।

প্রকল্প বাস্তবায়ন, মূল্যায়ন ও মনিটরিং কার্যক্রমকে শক্তিশালী করার কথা উল্লেখ করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, চরাঞ্চল, উপকূলীয় লবণাক্ত এলাকা, পাহাড় বা হাওরের প্রতিকূল এলাকায় কীভাবে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায়- সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট, লক্ষ্য নির্ধারণ ও ফলাফল নির্দিষ্ট গবেষণা করতে হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কেজিএফের চেয়ারম্যান ও বিএআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কেজিএফের প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট (হর্টিকালচার) ড. শাহাবুদ্দীন আহমদ।

সভায় জানানো হয়, কৃষিখাত, প্রাণিসম্পদ ও মৎস্য খাতে গবেষণা এবং উন্নয়নে কেজিএফ ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৬৪টি প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দ পেয়েছে ৪৫ কোটি টাকা। আর চলমান ২০২০-২১ অর্থবছরে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৬৪টি প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দ আছে ৩২ কোটি ১৯ লাখ টাকা।

এনএইচ/জেডএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]