প্রাণীর অস্ত্রোপচারসহ সব সেবা মেলে রবিনহুডের ক্লিনিকে

নাজমুল হুসাইন
নাজমুল হুসাইন নাজমুল হুসাইন , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১০ পিএম, ২৯ মার্চ ২০২১

বিড়ালের শরীরে ইনফেকশন, সঙ্গে রয়েছে জ্বর। ঘরোয়া চিকিৎসা দেয়া হলেও পোষা প্রাণীটির অবস্থার দিন দিন অবনতিই হচ্ছিল। অবশেষে বিড়ালটি নিয়ে ‘রবিনহুড কেয়ার-অ্যানিমেল ক্লিনিকে’ এসেছেন নীলা (ছদ্মনাম)।

খিলগাঁও তিলপাপাড়ায় অবস্থিত ওই অ্যানিমেল ক্লিনিকে নীলার সঙ্গী জানান, টেলিভিশনে প্রথম এমন পশু-পাখির ক্লিনিকের কথা জানতে পারেন তারা। এরপর ফেসবুকে খোঁজাখুঁজি করে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়েছিলেন। প্রয়োজনীয় সেবা ও চিকিৎসা পেয়ে সন্তুষ্ট তারা।

শুধু নীলা নন, তার মতো অনেকেই ওই ক্লিনিকে নিজের অসুস্থ পশু বা পাখিকে নিয়ে এসেছেন। সিলিং ফ্যানে লেগে ডানা ভাঙা পাখি নিয়ে এসেছেন আরেকজন। পাখির ডানা প্লাস্টার করে নেয়ার পরে তিনিও ব্যতিক্রমী এ উদ্যোগের প্রশংসা করেন।

পশু-পাখির এ ক্লিনিক চালু করেছেন ‘রবিনহুড দ্য অ্যানিমেল রেস্কিউ’ টিমের প্রধান আফজাল খান। তিনি গত ১১ বছর ধরে ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে আটকে পড়া, ভাসমান ও অসুস্থ প্রাণী উদ্ধার করে তাদের চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। দেড় বছর আগে তার রেস্কিউ টিম জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ -এ সেবা প্রদানকারী সংস্থা হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়ে প্রতিদিনই বিভিন্ন সেবা দিয়ে আসছে।

jagonews24

রেস্কিউ টিম অনেক আগের হলেও ক্লিনিকটির উদ্যোগ নতুন। কয়েক মাস আগে ক্লিনিকটি চালু করেছেন আফজাল খান। এরই মধ্যে প্রতিদিন ক্লিনিকে ভিজিটর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০-২৫ জনে। সপ্তাহের সাত দিনই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ক্লিনিকটি খোলা থাকে। সেখানে কুকুর, বিড়াল, খরগোশসহ যে কোনো পোষা প্রাণীর চিকিৎসা দেয়া হয়। প্রয়োজনীয় ওষুধও পাওয়া যায় এখানেই।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, বেশ পরিপাটি ক্লিনিকটিতে রয়েছে অস্ত্রপচারের ব্যবস্থাও। আছে পোস্ট-অপারেশন রুম, ল্যাব, ফার্মেসিসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা। একজন চিকিৎসকসহ এখানে সার্বক্ষণিক কাজ করছেন মোট সাতজন।

jagonews24

এখানে পশুচিকিৎসক আমির হোসেন প্রতিদিন বসেন। এছাড়া উপদেষ্টা হিসেবে ডা. লুৎফুর রহমান এবং ডা. নাফিজ আহমেদ রয়েছেন, যারা এখানে চিকিৎসা সেবা ও পরামর্শ দেন ।

তবে এখনো ক্লিনিকটি বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত হয় না বলে জানিয়েছেন আফজাল খান।

তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রতিদিন পোষা প্রাণীর পাশাপাশি রাস্তার বেশ কিছু প্রাণী নিয়ে আসে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। যেগুলো অত্যাচারিত বা দুর্ঘটনার শিকার। সেটার জন্য তারা পরিপূর্ণ খরচ বহন করতে পারে না।’

jagonews24

তবে এ ক্লিনিকের ব্যয় বহনে হিমশিম খেতে হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আধুনিক সরঞ্জাম খুবই ব্যয়বহুল। রাস্তাঘাটের অনেক প্রাণী আসে, যেগুলোর আধুনিক চিকিৎসা দিতে হয়। কিন্তু এর খরচ সাধারণত কেউ দেয় না। এছাড়া আমাদের ওষুধ কিনতে হয়, ডাক্তারদেরও টাকা দিতে হয়।’

তিনি বলেন, ‘সবার সহযোগিতা কামনা করছি এমন কাজের জন্য। যেন আমাদের কখনো আটকাতে না হয়। শুধু ঢাকা নয়, দেশের বিভিন্ন শহরে যেন প্রাণীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকে এটাই আমাদের চাওয়া।’

এনএইচ/এমএইচআর/এইচএ/জিকেএস

আধুনিক সরঞ্জাম খুবই ব্যয়বহুল। রাস্তাঘাটের অনেক প্রাণী আসে, যেগুলোর আধুনিক চিকিৎসা দিতে হয়। কিন্তু এর খরচ সাধারণত কেউ দেয় না। এছাড়া আমাদের ওষুধ কিনতে হয়, ডাক্তারদেরও টাকা দিতে হয়

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]