রোজায় ব্যবহৃত খাদ্যপণ্য : ৪৮৮ নমুনার মধ্যে ৫০টি নিম্নমানের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫৬ পিএম, ১১ এপ্রিল ২০২১

রমজান মাসে ভেজালমুক্ত পণ্য সরবরাহ নিশ্চিতকল্পে ইফতার ও সেহরিতে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের খাদ্যপণ্য সার্ভেল্যান্স টিমের মাধ্যমে খোলাবাজার থেকে সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছে বিএসটিআই। এ দফায় ৬৬১টি সংগ্রহ করা নমুনার মধ্যে এ পর্যন্ত পরীক্ষণ সম্পন্ন হয়েছে ৪৮৮টির। তার মধ্যে মানসম্মত নমুনা মিলেছে ৪৩৮টি এবং নিম্নমানের নমুনা পাওয়া গেছে ৫০টি। এছাড়াও এখন পর্যন্ত ১৭৩টি নমুনা পরীক্ষা বাকি রয়েছে।

রোববার (১১ এপ্রিল) রমজান মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে বিএসটিআই গৃহীত বিশেষ কার্যক্রম এবং বিএসএফআইসির চিনি বিক্রয় কার্যক্রম সম্পর্কে এক ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

বিএসটিআই সূত্রে জানা গেছে, ওই নিম্নমানের ৫০টি নমুনার পণ্য উৎপাদনকারীদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। নির্ধারিত সময় ও জবাবের পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

এতে আরও জানানো হয়, বিএসটিআই প্রতিবছর রমজান উপলক্ষে ভেজালবিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে থাকে। এবারও রোজার মধ্যে জনসাধারণ যাতে মানসম্মত খাদ্য ও পানীয় পেতে পারে তা নিশ্চিত করতে এ ধরনের অভিযানের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

রমজানের কার্যক্রম সম্পর্কে বিএসটিআই জানায়, পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ, পণ্যের ওজন ও পরিমাপে কারচুপি রোধকল্পে চলমান মোবাইল কোর্ট ও সার্ভেল্যান্স কার্যক্রম জোরদার করা হবে। ঢাকা মহানগরীতে বিএসটিআইয়ের নিজস্ব নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় প্রতিদিন কমপক্ষে ২টি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। এছাড়াও জেলা বা উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বিএসটিআইয়ের সকল বিভাগীয় বা জেলা কার্যালয়ের মাধ্যমে প্রতিদিন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার পরিকল্পনা রয়েছে।

পবিত্র রমজান মাসে জনগণ যাতে মানসম্মত পণ্য ক্রয় ও ব্যবহার করতে পারে সে লক্ষ্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বা প্রচার করা হচ্ছে। এছাড়া আকস্মিকভাবে পরিচালিত অভিযানগুলোতে বিশেষ করে রোজাদাররা সচরাচর যেসব খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করে থাকেন যেমন- মুড়ি, খেজুর, সফট ড্রিংকস পাউডার, কার্বোনেটেড বেভারেজ, ফ্রুট সিরাপ, ফ্রুট ড্রিংকস, ভোজ্যতেল, সরিষার তেল, ঘি, পাস্তুরিত দুধ, নুডুলস, ইনস্ট্যান্ট নুডুলস, লাচ্ছা সেমাই, সেমাই, পানি, ডেক্সট্রোজ মনোহাইড্রেট এবং ইফতার সামগ্রীর ওপর বিশেষ নজর রাখা হবে।

এছাড়াও বিএসটিআইয়ের ল্যাবে চলতি অর্থবছরে ২৯৬টি ফলের নমুনা পরীক্ষায় কোনোটিতে ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি বলে সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়।

এনএইচ/এআরএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]