চৈত্র সংক্রান্তি আজ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:২৫ পিএম, ১৩ এপ্রিল ২০২১

বাংলা বছরের শেষ দিন অথাৎ চৈত্র সংক্রান্তি আজ (১৩ এপ্রিল)। গত বছরের মতো করোনার ভয়াবহতা আর লকডাউনের ফাঁদেই শেষ হলো বাংলা বছরটি।

বুধবার (১৪ এপ্রিল) পহেলা বৈশাখ। এর মাধ্যমে কাল থেকে শুরু হবে ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। কিন্তু করোনা আতঙ্কের মধ্যে মানুষের মনে শান্তি নেই। বাইরে যাওয়া নিষেধ। উৎসবের অনুষঙ্গ নতুন পোশাকও কিনতে পারেননি অনেকে।

চৈত্র থেকে বর্ষার প্রারম্ভ পর্যন্ত যখন সূর্যের প্রচণ্ড উত্তাপ থাকে তখন তেজ প্রশমন ও বৃষ্টি লাভের আশায় কৃষিজীবী সমাজ বহু অতীতে চৈত্র সংক্রান্তির উদ্ভাবন করেছিল।

jagonews24

সনাতনী ধর্ম অনুযায়ী এই দিনে স্নান, দান, ব্রত, উপবাস প্রভৃতিকে পুণ্যকর্ম বলে মনে করা হয়। তবে চৈত্র সংক্রান্তিতে সনাতন হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান উৎসব হলো চড়ক। এর সঙ্গে চলে মেলা। কিন্তু করোনায় এবার তেমন কিছুই হচ্ছে না।

তারপরেও জরাজীর্ণতা, ক্লেশ ও বেদনাকে বিদায় জানানোর পাশাপাশি সব অন্ধকারকে বিদায় জানিয়ে আলোর পথে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা থাকবে গোটা জাতির। এজন্য আবহমানকাল থেকেই দিনটি পালন হয়ে আসছে। কিন্তু গত বছরের মতো এবারও করোনার কারণে মানুষের জীবন ও জীবিকা হুমকির মুখে। তাই পুরোনো বছরকে ঘটা করে বিদায় জানানো যাচ্ছে না।

jagonews24

তবে ঘরে অবস্থান করেই পুরোনো বছরকে বিদায় জানাচ্ছে বাঙালি। প্রত্যাশা করছে-বুধবার শুরু হওয়া নতুন বছর যেন সব ধরনের শঙ্কা, রোগ-শোক, অনিশ্চয়তা থেকে মুক্ত রাখে সবাইকে। আনন্দে ভরে ওঠে বাংলার প্রতিটি ইঞ্চি। পুরোনো বছরের জরাজীর্ণতার সঙ্গে নিপাত যাক মহামারির ঘাতক ভাইরাস, এটাই সবার প্রত্যাশা।

এইচএস/এমআরআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]