অভ্যন্তরীণ দুর্নীতি রোধ দুদকে ৭ সদস্যের কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৩৭ পিএম, ০৬ মে ২০২১

সম্প্রতি দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় প্রতিষ্ঠানটির অভ্যন্তরীণ দুর্নীতি রোধ এবং স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিতে সাত সদস্যের একটি গঠন করেছে কমিশন। দুদক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দুদকের বিশেষ তদন্ত অনুবিভাগের মহাপরিচালক সাঈদ মাহবুবের নেতৃত্বে সাত সদস্যের কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- দুদক গোয়েন্দা বিভাগের পরিচালক মীর জয়নাল আবেদীন শিবলী, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা অনুবিভাগের পরিচালক উত্তম কুমরা মন্ডল, বিশেষ তদন্ত অনুবিভাগের পরিচালক মো. আকতার হোসেন আজাদ, পরিচালক (অর্থ ও হিসাব) মোহাম্মদ আব্দুল আওয়াল, পরিচালক (মানি লন্ডারিং) গোলাম শাহরিয়ার চৌধুরী ও একই অনুবিভাগের উপপরিচালক এ এস এম সাজ্জাদ হোসেন।

জানা গেছে, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়,অধিদফতর বা সংস্থার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধির জন্য দুদক যেভাবে প্রাতিষ্ঠানিক টিম গঠন করে, ঠিক একই আদলে কমিশনের অভ্যন্তরীণ দুর্নীতি রোধ এবং স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও কাজের গতিশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

দুদক সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এই কমিটিকে কমিশনের কর্মপ্রক্রিয়ার ছয়টি ক্ষেত্রে যদি কোনো সমস্যা থেকে থাকে তা চিহ্নিতকরণ এবং এসব সমস্যা সমাধানে সুপারিশ সম্বলিত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া কমিটিকে ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে এ প্রতিবেদন কমিশনে দাখিলের কথা বলা হয়েছে।

এই কমিটির কর্মপরিধির মধ্যে রয়েছে অনুসন্ধান ও তদন্ত সংশ্লিষ্ট কাজে দীর্ঘসূত্রতার কারণ চিহ্নিতকরণ ও সমাধানের সুপারিশ, অনুসন্ধান ও তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দক্ষতা, যোগ্যতা, ভাবমূর্তি ও জবাবদিহিতার ক্ষেত্র পর্যালোচনাপূর্বক সুপারিশসহ মতামত প্রদান, অনুসন্ধান ও তদন্ত সংশ্লিষ্ট দায়িত্বের ক্ষেত্রে কর্মকর্তা ভিত্তিক কাজের পরিমাণ পর্যালোচনাপূর্বক মতামত প্রদান, অনুসন্ধান এবং তদন্তকার্য পরিচালনার সময় তদন্তকারী কর্মকর্তা বা অপর কোনো কর্মকর্তা কর্তৃক দুর্নীতি বা অভিযোগের আওতাধীন ব্যক্তিকে হয়রানি করার সুযোগের ক্ষেত্রসমূহ চিহ্নিত করা এবং তা নিরসনের জন্য সুপারিশ করা, কমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত দুর্নীতি সংশ্লিষ্ট অভিযোগসমূহ পর্যালোচনাপূর্বক করণীয় বিষয়ে মতামত প্রদান, কমিশনের সুনাম ও সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা বজায় রাখতে সুপারিশ প্রণয়ন ইত্যাদি।

জানা গেছে, এই কমিটি প্রয়োজনে যেকোনো সদস্য কো-অপ্ট করতে পারবে। এ প্রসঙ্গে দুদক সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, ‘কমিশনের নির্দেশে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। দুদকের কর্মপ্রক্রিয়াকে আরও স্বচ্ছ, জবাবদিহিতামূলক এবং জনবান্ধব করার ক্ষেত্রে এই কমিটির সুপারশি কমিশনে উপস্থাপন করা হবে। আমরা ঘরে-বাইরে সকলের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে আইনগতভাবেই অঙ্গীকারাবদ্ধ।’

দুদক সূত্র জানায়, একই উদ্দেশ্যে ইতোপূর্বে ২২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগে দুদক যেসব সুপরারিশ পাঠিয়েছে সেগুলো কীভাবে বাস্তবায়ন করা যাবে, সে সম্পর্কে করণীয় নির্ধারণে দিক-নির্দেশনা চেয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে অুনরোধ জানিয়ে এক জরুরি পত্র দিয়েছে দুদক।

এসএম/ইএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]