সম্পদের লোভে বাড়িওয়ালার স্ত্রীকে হত্যা করে ভাড়াটিয়া দম্পতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১৮ পিএম, ১২ মে ২০২১

বাসা ভাড়া নিয়ে সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে বাড়িওয়ালাকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অজ্ঞান করে তার স্ত্রী হোসেনে আরা বেগমকে (৬৪) হত্যা করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে পালিয়ে যায় ভাড়াটিয়া। নারায়ণগঞ্জে সোনারগাঁয় থানার কাউচর এলাকায় চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা ও তার স্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

গ্রেফতাররা হলেন- হারুন অর রশীদ (২৪) ও তার স্ত্রী সুলতানা খাতুন (২৫)।

বুধবার (১২ মে) দুপুরে সিআইডি সদর দফতরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত ডিআইজি) মো. ইমাম হোসেন।

তিনি বলেন, কাউচর এলাকায় গত ৮ মে রাতে বাড়ির মালিক আজিম উদ্দিনকে চা-বিস্কুটের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাওয়ায় অভিযুক্তরা। এতে তিনি অজ্ঞান হয়ে যান। এরপর আজিম উদ্দিনের স্ত্রী হোসেনে আরা বেগমকে মুখে গামছা ঢুকিয়ে এবং মুখে স্কচ টেপ পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়। এরপর তাদের ঘর থেকে নগদ দুই লাখ টাকা ও তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে পালিয়ে যান হারুন ও সুলতানা।

এ ঘটনায় পরের দিন সোনারগাঁও থানায় একটি হত্যা মামলা (নম্বর-০৯) করা হয়।

সিআইডি কর্মকর্তা ইমাম হোসেন বলেন, গ্রেফতার হারুন অর রশীদ লেখাপড়া করেছেন আটরশির একটি মাদরাসায়। তিনি সেখানে পড়াতেন এবং ধর্মীয় শিক্ষা দিতেন। করোনার কারণে চাকরি হয়ে সোনারগাঁও এলাকার কাউচর গ্রামে একটি কারাখানায় কাজ নেন এবং হোসেনে আরা বেগমের বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে ওঠেন। সেখানে তার সঙ্গে সুমন ও শিপন নামে দুই ব্যক্তির পরিচয় হয়। হোসনে আরা বেগমের ওই বাড়িতে ২৪টি রুম ছিল। তার আরও তিনটি বাড়ি রয়েছে।

jagonews24

জানা যায়, নিহত হোসনে আরা দীর্ঘদিন প্রবাসে থেকে কিছুদিন আগে দেশে এসেছেন। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী অভিযুক্তরা তার স্বামীকে ঘুমের ওষুধ মেশানো চা-বিস্কুট খেতে দেয়। এতে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে ওইদিনের পরিকল্পনা তাদের ভেস্তে যায়। পরে আবারও আজিম উদ্দিনকে চা-বিস্কুটের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অজ্ঞান করে হোসেনে আরাকে হত্যা করে।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুক্তা ধর বলেন, ঘটনাটি জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। অপরাধ সংঘটনের পর সিআইডি ছায়া তদন্ত করে। সংশ্লিষ্ট তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ ও নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে হারুন অর রশীদ এবং তার স্ত্রী সুলতানা খাতুনের অবস্থান শনাক্ত করে। পরে গাজীপুরের জিরানি এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারদের বরাত দিয়ে মুক্তা ধর বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জিসানুল হক জিসান ও সহকারী পুলিশ মো. শাহজাহান খান উপস্থিত ছিলেন।

টিটি/এসএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]