পুলিশের সহায়তায় নিজের বিয়ে বন্ধ করল কিশোরী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩০ পিএম, ১৮ মে ২০২১ | আপডেট: ০৭:৪৬ পিএম, ১৮ মে ২০২১
প্রতীকী ছবি

মেধাবী ছাত্রী তমালিকা (ছদ্ম নাম)। এসএসসিতে ‘এ প্লাস’ পেয়েছিল। বর্তমানে সাভার মডেল কলেজে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। পড়াশোনা করে বড় হবে এটাই ছিল তার স্বপ্ন। মাঝে বাধ সাধে তার বাবার জেদ। মেয়েকে বিয়ে দেবেন। ভাল পাত্রও পেয়েছেন, তাই তাড়াহুড়া।

শত চেষ্টা করেও বাবার সিদ্ধান্ত পাল্টাতে পারেনি তমালিকা। মোবাইল কেড়ে নেয়ায় বাইরে যোগাযোগের সব পথও বন্ধ।

মঙ্গলবার (১৮ মে) বাংলাদেশ পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স) মো. সোহেল রানা এসব তথ্য জানান।

পুলিশ জানায়, এরই ফাঁকে এক আত্মীয়ের মোবাইল থেকে এক সহপাঠীকে ফোন করে সাহায্য চায় কিশোরী। কিশোরীর ওই সহপাঠী বন্ধুই পুলিশের ফেসবুক পেজের ইনবক্সে এসএমএস করে সহায়তা চায়। দ্রুত ব্যবস্থা নেয় পুলিশ। মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেনকে এসএমএসটি পাঠিয়ে অভিযোগ সত্য হলে তাৎক্ষণিক বিয়ে বন্ধ করার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়।

পুলিশ পৌঁছানোর আগেই বিয়ে হয়ে যেতে পারে, তাই কাছাকাছি এলাকার এক জনপ্রতিনিধিকে ফোন করে তার সহায়তা চায় পুলিশ। তিনি ছুটে গিয়ে অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে বিয়ে থামান। পুলিশও পৌঁছে যায় কিছুক্ষণের মধ্যে। বন্ধ হয় বাল্যবিয়ে।

টিটি/এএএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]