দূষণমুক্ত শহর নির্মাণে ‘ঢাকা কলিং’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১০ এএম, ১৮ জুন ২০২১

‘দূষণমুক্ত ঢাকা সিটি’ এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে ইউএসএইড ও এফসিডিও-এর আর্থিক সহযোগিতায় এবং কাউন্টারপার্ট ইন্টারন্যাশনালের কারিগরি সহযোগিতায় ‘ঢাকা কলিং’ নামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে।

প্রকল্প কনসোর্টিয়াম মেম্বার দুঃস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্র (ডিএসকে), কোয়ালিশন ফর দ্য আরবান পুওর (কাপ), বাংলাদেশ রিসোর্স সেন্টার ফর ইন্ডিজেনাস নলেজ (বারসিক) এবং ইনসাইটস নামে চারটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (মোল্লার বস্তি ও কড়াইল বস্তি) এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (বালুরমাঠ ও হাজারীবাগ বস্তি) চারটি বস্তিতে মডেল হিসেবে কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে।

এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) ডিএসকে কনসোর্টিয়ামের পক্ষে কোয়ালিশন ফর দ্যা আরবান পুওর (কাপ) কর্তৃক ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল ২ এর কনফারেন্স রুমে একটি লোকাল লেভেল কনসালটেশন সভার আয়োজন করা হয়।

সভার উদ্দেশ্য ছিল প্রকল্প ও প্রকল্পের অধীনে স্থানীয় মোল্লার বস্তিতে কার্যক্রম সম্পর্কে অবগতিকরন, সিটি করপোরেশনের অধীনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি ও নিয়মাবলী অবগতিকরণ, সংশ্লিষ্ট এলাকায় বর্তমান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা উত্থাপন এবং সুস্থ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও স্বাস্থ্যগত পরিবেশ উন্নয়নে যৌথভাবে কার্যক্রম বাস্তবায়নে দিকনির্দেশনা প্রণয়ন ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-২ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা এ এস এম শফিউল আজম, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মাহমুদা আলী, সহকারী প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা, সমাজকল্যাণ কর্মকর্তা এবং দুজন ওয়ার্ড সুপারভাইজার।

সভায় সেশন চেয়ার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তাজুল ইসলাম চৌধুরী বাপ্পী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারী কাউন্সিলর শিখা চক্রবর্তী (ওয়ার্ড নম্বর ৬, ৭, ৮)। এছাড়া ৬ নম্বর ওয়ার্ডে কর্মরত এনজিও, বস্তিভিত্তিক তৃণমূল সংগঠনের নেতারা, কাপ, বারসিক এবং ডিএসকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাও কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় প্রকল্প সম্পর্কে ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন সানজিদা জাহান আশরাফী, কনসোর্টিয়াম কো-অর্ডিনেটর, ঢাকা কলিং প্রকল্প। নগর পরিবেশ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আইন এবং নীতিমালা বিষয়ে ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন অ্যাডভোকেট নাসরিন আক্তার সুমী।

সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি, সীমাবদ্ধতা এবং সমস্যার ওপর আলোকপাত করেন আনোয়ার হোসেন ভূঁইয়া, সমাজকল্যাণ কর্মকর্তা, জোন ২, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন, এছাড়া ডা. মাহমুদা আলী বর্জ্য সম্পর্কিত দূষণে স্বাস্থ্য বিষয়ে ঝুঁকি বিশেষভাবে নারী ও শিশুদের ওপর যে প্রভাব ফেলে তা তুলে ধরেন।

মুক্ত আলোচনায় স্থানীয় সিবিও নেতারা এবং এনজিও প্রতিনিধিরা তাদের সমস্যা, দিকনির্দেশনা ও সহযোগিতামূলক মতামত প্রদান করেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন কাপের নির্বাহী পরিচালক খোন্দকার রেবেকা সান ইয়াত।

আইএইচআর/এমআরআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]