আড়াই হাজার শ্রমিক পাচ্ছেন সাড়ে ৯ কোটি টাকার সহায়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১১ পিএম, ২১ জুন ২০২১

প্রাতিষ্ঠানিক-অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের কল্যাণে গঠিত বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের তহবিল হতে আড়াই হাজার শ্রমিক এবং তাদের স্বজনদের মৃত্যুজনিত, দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্তদের চিকিৎসা এবং সন্তানের উচ্চশিক্ষার জন্য সহায়তা হিসেবে প্রায় নয় কোটি ৪৫ লাখ টাকা সহায়তা দেয়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সোমবার (২১ জুন) বিকেলে রাজধানীর বিজয়নগরে শ্রম ভবনের সম্মেলনকক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মুন্নুজান সুফিয়ানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলের ২৩তম বোর্ড সভায় দুই হাজার ৫৩১টি আবেদন সহায়তার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়।

শ্রম আইনের আলোকে গঠিত বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে এ পর্যন্ত দেশি-বিদেশি এবং বহুজাতিক মিলে ২০৩টি কোম্পানির জমা দেয়া লভ্যাংশের নিদিষ্ট অংশ সাড়ে পাঁচশ কোটি টাকা হয়েছে।

গত অক্টোবর ২০২০ থেকে মে ২০২১ পর্যন্ত এ তহবিল হতে সহায়তার জন্য মৃত্যুজনিত কারণে ১৩৮ জন শ্রমিকের পরিবার, চিকিৎসা সহায়তার জন্য দুই হাজার ১৩৪ জন এবং শ্রমিকের সন্তানের উচ্চশিক্ষা সহায়তার জন্য ২৫৯ জন আবেদন করেন। প্রাতিষ্ঠানিক-অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের ১৩৮ জন শ্রমিকের মৃত্যুজনিত কারণে ৬২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা, বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত দুই হাজার ১৩৪ জন শ্রমিকের চিকিৎসার জন্য আট কোটি দুই লাখ ৫৫ হাজার টাকা এবং শ্রমিকের ২৫৯ জন সন্তানের উচ্চশিক্ষায় সহায়তার জন্য ৮০ লাখ টাকা অনুমোদন দেয়া হয়েছে। শিগগিরই অনুমোদিত আবেদনকারীদের সহায়তা প্রদান করা হবে।

সভাপতির বক্তৃতায় শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারির সময়ে এসব শ্রমজীবী পরিবার আমাদের এ তহবিল থেকে সহায়তা পেলে তাদের অনেক বড় উপকার হবে। শ্রম মন্ত্রণালয় শ্রমিক কল্যাণ তহবিল নিয়ে সব সময় অসহায়দের পাশে আছে, থাকবে সব সময়। অনুমোদিত সহায়তার অর্থ যাতে স্বল্পতম সময়ে শ্রমিকদের হাতে পৌঁছে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন তিনি।

বোর্ড সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালাম, অতিরিক্ত সচিব ড. রেজাউল হক, বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক জেবুন্নেসা করিম, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের মহাপরিদর্শক মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ, শ্রম অধিদফতরের মহাপরিচালক গৌতম কুমারসহ ফাউন্ডেশনের বোর্ডের সদস্যরা এবং মন্ত্রণালয়ের অধীন অধিদফতর-সংস্থাসমূহের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন।

আইএইচআর/এআরএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]