প্রকৌশলীদের তত্ত্বাবধানে আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়নের সুপারিশ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:২২ পিএম, ২৭ জুলাই ২০২১

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী, মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশের গৃহহীনদের জন্য নির্মিত ঘর নির্মাণে অব্যবস্থাপনা এড়িয়ে সুষ্ঠুভাবে কাজ সম্পন্ন করতে দেশের প্রকৌশলীদের তত্ত্বাবধায়নে বাস্তবায়নের সুপারিশ করেছে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)। এছাড়াও আইইবি সুনির্দিষ্ট পাঁচটি প্রস্তাবনা পেশ করেছে।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) এক বিবৃতিতে আইইবির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু) এ দাবি করেন।

বিবৃতিতে প্রকৌশলী শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু) বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন যুগোপযোগী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বিশ্বের অন্যতম একজন সফল রাষ্ট্রনায়কের স্বীকৃতি পেয়ে বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করেছেন। পদ্মা সেতু, কর্ণফুলী টানেল, পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মতো স্থাপনা বাস্তবায়ন- বিশ্বে বাংলাদেশকে মর্যাদার আসনে স্থান দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী, মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশের গৃহহীনদের বিনামূল্যে ঘর প্রদান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আরেকটি সুদূরপ্রসারী যুগান্তকারী মানবিক প্রকল্প।

আইইবির সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সচিত্র তথ্য হতে জানা যায়, ঘর নির্মাণের কিছু দিনের মধ্যেই অনেকগুলো ঘরে ফাটল এবং অনেকগুলো ঘর ইতোমধ্যে বসবাসের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে। আইইবি মনে করে, এই ঘটনায় সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে।

এমতাবস্থায় আইইবি মনে করে, আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ প্রকৌশলীদের তত্ত্বাবধায়নে করা হলে দুর্নীতি-রোধসহ প্রকল্পের সুষ্ঠু বণ্টন এবং সরকারের ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ণ থাকবে। তাই আইইবির পক্ষ থেকে পাঁচটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব করা হচ্ছে।

প্রস্তাবগুলো হলো-
>> বিল্ডিং নির্মাণ একটি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস এবং প্রকল্পটি ইঞ্জিনিয়ারিং প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্টের আওতাধীন থাকা বাঞ্ছনীয়, বিধায় দেশের যেকোনো সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের মাধ্যমে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করাই যুক্তিযুক্ত ছিল।

>> অন্যান্য ইঞ্জিনিয়ারিং প্রজেক্টের ন্যায় টেকনিক্যাল সুপারভিশন, সয়েল টেস্ট ও ম্যাটেরিয়াল টেস্টের মতো বিভিন্ন কোয়ালিটি কন্ট্রোল টেস্ট, ইঞ্জিনিয়ারিং পয়েন্ট অব ভিউ থেকে মনিটরিং ও সিদ্ধান্ত প্রদানের অভাব এই প্রকল্পে পরিলক্ষিত হয়েছে।

>> উপজেলা পর্যায়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) উপজেলা প্রকৌশলী ও তার অধীনস্থ টেকনিক্যাল ম্যান পাওয়ার দিয়ে কাজ চলাকালীন নিবিড় তদারকির মাধ্যমে ড্রয়িং-ডিজাইন অনুযায়ী কোয়ালিটি ঠিক রেখে কাজটি বাস্তবায়ন করা যেত।

>> জেলা পর্যায়ে গণপূর্ত, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল, শিক্ষা প্রকৌশল, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল, সড়ক ও জনপথ, পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ বিভিন্ন অধিদফতরের জেলা নির্বাহী প্রকৌশলীদের সমন্বয়ে একটি প্রকৌশল টিমের দ্বারা উক্ত কাজের মনিটরিং ও কোয়ালিটি কন্ট্রোলে সিদ্ধান্ত প্রদান করে কাজের মান নিয়ন্ত্রণ করা যেত। উপজেলা পর্যায়ে যেকোনো ধরনের কারিগরি ত্রুটি ও সমস্যা জেলা পর্যায়ের টিম তাৎক্ষণিক কারিগরি সিদ্ধান্ত দিয়ে সমাধান করতে পারত।

>> সর্বোপরি প্রধানমন্ত্রীর দফতরে গণপূর্ত, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল, শিক্ষা প্রকৌশল, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল, সড়ক ও জনপথ, পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ বিভিন্ন অধিদফতরের সিনিয়র ও অভিজ্ঞ প্রকৌশলীদের দ্বারা একটি ইঞ্জিনিয়ারিং সেল গঠন করে একজন অভিজ্ঞ ও দক্ষ প্রকৌশলী প্রকল্প পরিচালকের নেতৃত্বে উক্ত ইঞ্জিনিয়ারিং সেলের মাধ্যমে প্রকল্পটির ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজমেন্ট, প্রকিউরমেন্ট ম্যানেজমেন্ট এবং প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট পরিচালনা করলেই ত্রুটি-বিচ্যুতিগুলো এড়ানো যেত।

এই পদক্ষেপগুলো আমলে নিলে দৃশ্যমান দুর্ঘটনাগুলো এড়ানো যেত এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য যেকোনো ধরনের ইঞ্জিনিয়ারিং প্রকল্প, প্রকৌশল অধিদফতরগুলোর মাধ্যমে বাস্তবায়ন হবে বলে আইইবি মনে করে।

এসইউজে/এআরএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]