গরিব-অসহায়-রোগীদের ‘ফ্রি সার্ভিস’ সিএনজিচালক কাদেরের

নাজমুল হুসাইন
নাজমুল হুসাইন নাজমুল হুসাইন , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০১ পিএম, ০৩ আগস্ট ২০২১

রাজধানীর নিকুঞ্জের সড়কে দাঁড়িয়েছিল একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা। বাহনটির চারপাশে লেখা ‘গরিব, অসহায় ও প্রতিবন্ধী রোগীদের জন্য ফ্রি সার্ভিস’। আব্দুল কাদের নামের একজনের মোবাইল নম্বর দেয়া আছে যোগাযোগের জন্য।

বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেও সিএনজিচালকের দেখা মিলছিল না। সেই মোবাইল নম্বরে কল দেয়া হলে সাড়া মেলে আব্দুল কাদেরের। খিলক্ষেত থেকে এক দরিদ্র রোগীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিতে হবে জানালে ষাটোর্ধ্ব কাদের উত্তর দেন, ‘ঠিকানা দেন, এখনই আসছি।’

‘ফ্রি সার্ভিস তো? রোগীর কোনো টাকা নেই কিন্তু। খুব গরিব মানুষ।’ এমন কথা বলা হলে কাদের ঠিকানা দেয়ার কথাই বলেন।

এরপর নিকুঞ্জের সেই সিএনজি অটোরিকশার পাশে রোগীর এক আত্মীয় অপেক্ষায় আছেন জানালে কিছুক্ষণের মধ্যে চলে আসেন কাদের।

পরে কাদেরের এই উদ্যোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বিস্তারিত বলেন তিনি। এই চালক জানান, কোনো সংস্থা বা ব্যক্তি নেই তার উদ্যোগে। তিনি সিএনজি চালান, আর মানুষকে সেবা করে যান।

সময় ও নিজের টাকায় জ্বালানি ব্যয় করে কেন এমন করেন, প্রশ্ন করলে কাদের বলেন, ‘ভালো লাগে। শান্তি পাই।’

কাদেরের বাড়ি চাঁদপুরের মতলবে। কর্মজীবনের প্রথম দিকে নারায়ণগঞ্জ গিয়ে অর্থাভাবে পড়েছিলেন। সেখান থেকে কোনোভাবেই ঢাকায় আসতে পারছিলেন না। পরে একজন তাকে ঢাকায় পৌঁছে দেয়।

jagonews24

কাদের বলেন, ‘সেই বিপদের অভিজ্ঞতা থেকে আমি এ উদ্যোগ নিয়েছি। আরেক ভাই যখন বিপদে পড়বেন, তাকে সহযোগিতার চেষ্টা করবো।’

কাদেরের এ উদ্যোগ একটি সিএনজিতে সীমাবদ্ধ নেই। তার দেখাদেখি এমন ১৫টি সিএনজি চলছে ঢাকার আশপাশে। ‘ফ্রি সার্ভিস’ পাচ্ছেন অসহায়-দুস্থ রোগীরা।

কাদের বলেন, ‘গাড়ি চালাই। টাকা ইনকাম করি। পাশাপাশি যদি একজন রোগী পাই, তবে সহযোগিতা করার চেষ্টা করি।’

কাদেরের বসবাস নিকুঞ্জতেই। একটি ছেলে ছিল, মারা গেছে। এখন তিনটি মেয়ে আর স্ত্রীকে নিয়ে সুখের সংসার তার।

কোনো গরিব, অসহায় বা প্রতিবন্ধী রোগীর সহায়তায় যে কোনো সময় ফোন পেলেই ছুটে যান কাদের। তার সিএনজি অটোরিকশায় রোগীকে পৌঁছে দেন হাসপাতালে।

কাদেরের আক্ষেপ, তিনি সিএনজি নিয়ে এমন সেবা সবখানে দিতে যেতে পারেন না। কারণ তার গাড়ির নিবন্ধন সংক্রান্ত কারণে সব এলাকায় যাওয়া যায় না। যদিও রোগী থাকলে অনেক সময় নির্দিষ্ট এলাকা ছেড়ে যেতে হয়, ফেরার পথে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়।

কাদের বলেন, ‘আমাদের এ সেবা কার্যক্রমে যদি সরকারের সহযোগিতা পেতাম তবে সবখানে যেতে পারতাম।’

তিনি জানান, ৯৯৯-এর জাতীয় জরুরি সেবা কার্যক্রমেও যোগ হতে চান, যেন আরও বেশি মানুষের সেবা করতে পারেন।

এনএইচ/এইচএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]