উপকূলে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে নেয়া হচ্ছে দুই প্রকল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:৩৮ পিএম, ০৫ আগস্ট ২০২১

খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের উপকূলে সুপেয় পানি সঙ্কটাপন্ন এলাকায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে পুকুর ও দিঘী খনন প্রকল্প হাতে নিচ্ছে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়। এজন্য বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সচিবালয়ে ওই দুটি প্রকল্পের যাচাই সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ভূগর্ভস্থ পানির পুনর্ভরণ, দুর্যোগে সুপেয় পানি সরবরাহ, পানির লবণাক্ত প্রভাব হ্রাস, কৃষি, মৎস্য ও বনায়ন উন্নয়নে ৪৬ কোটি ৫১ লাখ ৬ হাজার এবং তিন কোটি ৫৬ লাখ টাকার দুটি পৃথক প্রকল্প নিয়ে কাজ করতে চায় পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়।

এ বিষয়ে সভায় পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনে দুর্যোগ বেশি হচ্ছে এবং যেকোনো দুর্যোগে উপকূল অঞ্চলে সুপেয় পানি সঙ্কটে মানুষের খুব কষ্ট হয়। তাই সরকারি জমিতে পুকুর, দিঘী খনন এবং তা রক্ষণাবেক্ষণ করে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করতে সরকারের এই উদ্যোগ। পানির এসব জলাধার থেকে সংযোগ মাধ্যমে লোকালয়ে পানি পৌঁছানো হবে।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, জলাবদ্ধতা দূরীকরণ ও কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতে গোপালগঞ্জের পানি ব্যবস্থাপনা নিয়ে পৃথক একটি প্রকল্প একই সভায় আলোচনা হয়। টুঙ্গিপাড়া, কোটালিপাড়া এবং গোপালগঞ্জ সদরের প্রায় ৬৫ হাজার ৫৭১ হেক্টর জমিকে বন্যা ও লবণাক্ততা থেকে রক্ষায় এবং নৌ-যোগাযোগ সুগমের উদ্দেশ্যসহ প্রকল্প শেষ হওয়ার সময় ধরা হয়েছে ২০২৪ সালের জুন মাস পর্যন্ত।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) রোকন উদ দৌলা, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) আলম আরা বেগম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক ফজলুর রশিদ, অতিরিক্ত মহাপরিচালক এ কে এম সামছুল আলমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরএমএম/এসজে

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]