নৌভ্রমণে ২ তরুণীকে যৌন হয়রানি, ৯৯৯-এ ফোনে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০১ পিএম, ০২ সেপ্টেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

শীতলক্ষ্যা নদীতে রাতে পিকনিকে গিয়ে যৌন হয়রানির শিকার হন দুই তরুণী। তাদের মধ্যে একজন দ্রুত জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল করেন। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুক্তভোগী দুই তরুণীকে উদ্ধার করেছে গাজীপুরের কাপাসিয়া থানা পুলিশ।

এসময় উদ্ধার অভিযানে যাওয়া পুলিশ সদস্যদের ওপর হামলার অভিযোগে ১৬ জনকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ৯৯৯-এর পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বুধবার রাত ৮টার দিকে গাজীপুরের কাপাসিয়ার গোদারাঘাট সংলগ্ন শীতলক্ষ্যা নদীতে একটি চলন্ত নৌযান থেকে ভীতসন্ত্রস্ত এক তরুণী ৯৯৯-এ ফোন করেন। ওই তরুণী জানান, তিনি ও আরেকজন তরুণী কাপাসিয়া থেকে ৫০-৬০ জন যুবকের একটি পিকনিক দলের সঙ্গে যোগ দেন।

তারা মূলত পেশাদার নৃত্যশিল্পী, পিকনিকে নৃত্য পরিবেশন করার জন্য অর্থের বিনিময়ে তারা ওই পিকনিক দলে যোগ দেন। পিকনিকে নৃত্য পরিবেশন করার পর রাত হলেও তাদের নামিয়ে দেয়া হচ্ছিলো না। বরং পিকনিক দলের বেশকিছু ছেলে তাদের কুপ্রস্তাব দেয় ও ধর্ষণের পরিকল্পনা করে। এরপর ওই তরুণী কৌশলে লুকিয়ে ৯৯৯-এ ফোন করেন। তরুণী ৯৯৯-এর কাছে তাদের দ্রুত উদ্ধারের জন্য অনুরোধ জানান।

৯৯৯ তাৎক্ষণিকভাবে গাজীপুরের কাপাসিয়া থানায় বিষয়টি জানিয়ে দ্রুত উদ্ধারের ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ জানায়। ৯৯৯ পুলিশ ডিসপাচার এএসআই মোজাহিদ ও ৯৯৯ ডিউটি টিম সুপারভাইজার ইন্সপেক্টর নুর মোহাম্মদ বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ এবং কলারের সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশি অভিযানের আপডেট নিতে শুরু করেন।

৯৯৯ থেকে খবর পেয়ে গাজীপুর কাপাসিয়া থানার একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে উচ্ছৃঙ্খল যুবকরা তাদের বড় নৌযান দিয়ে পুলিশ দলের ছোট নৌযানকে সজোরে আঘাত করলে সেটি ডুবে যায়। পাশের অন্য নৌযানের মাঝিরা আহত পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে।

এরপর আহত পুলিশ সদস্যরা ৯৯৯-এ ফোন করে পরিস্থিত জানান। ৯৯৯ তখন বিষয়টি আবার কাপাসিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) অবহিত করলে কাপাসিয়া থানার একাধিক দল ও পার্শ্ববর্তী কালিগঞ্জ থানার টিম অপরাধীদের গ্রেফতারে অভিযানে নামে।

কাপাসিয়া থানার তদন্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান খান ৯৯৯-কে জানান, গাজীপুরের কাপাসিয়ার শীতলক্ষ্যা নদীর নাকাশিনি ঘাট থেকে দুই তরুণীকে উদ্ধার করা হয় এবং পিকনিক দলের ১৬ যুবককে আটক করা হয়। এ ঘটনায় আহত পুলিশ দলের নৌযানের মাঝি ও এসআই সাজ্জাদকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে এবং পিকনিক দলে থাকা অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান ৯৯৯-এর পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার।

এদিকে, পৃথক আরেকটি ঘটনায় জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে লিফটে আটকে পড়া এক কলারের ফোনকলে লিফটে আটকে পড়া এক নারীসহ তিন ব্যক্তিকে উদ্ধার করেছে চট্টগ্রামের চন্দনপুরা ফায়ার স্টেশন। উদ্ধাররা হলেন মালেকা বানু (৩৫), সাইফুদ্দিন (৩০) ও আহমেদ কাদের (৩৩)।

চন্দনপুরা ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো. শহিদুলল ইসলাম জানান, তারা হাইড্রোলিক স্প্রেডার ব্যবহার করে আটকে পড়া লিফট থেকে এক নারী ও দুই পুরুষকে নিরাপদে উদ্ধার করেছেন।

টিটি/এএএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]