দিঘি বন্দোবস্তে অনিয়ম: ২ বছর বেতন বাড়বে না উপ-সচিব মান্নুর

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:০৫ পিএম, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

নাটোরের রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময় অর্ধবঙ্গেশ্বরী রানী ভবানী দিঘির দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রক্রিয়ায় অনিয়মের জন্য উপ-সচিব (বর্তমানে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা- ওএসডি) নাজমুন নাহার মান্নুর দুই বছর বেতন বাড়বে না।

‘সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮’ অনুযায়ী নাজমুন নাহারকে লঘুদণ্ড দিয়ে গত ১৩ সেপ্টেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কে এম আলী আজম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, নাজমুন নাহার মান্নুর ‘বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮’ এর বিধি ৩(খ) অনুযায়ী 'অসদাচরণ' এর অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় অভিযোগের গুরুত্ব এবং সার্বিক বিষয় বিবেচনায় একই বিধিমালার ৪(২)(খ) বিধি অনুসারে তাকে দুই বছরের জন্য বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি স্থগিত রাখার লঘুদণ্ড দেওয়া হলো। ভবিষ্যতে তিনি এই মেয়াদের কোনো বকেয়া পাবেন না এবং এই মেয়াদ বেতন বৃদ্ধির জন্য গণনা করা যাবে না।

এতে বলা হয়, নাজমুন নাহার মান্নু ২০০৪ সালের ৩ এপ্রিল থেকে ২০০৭ সালের ৫ জুন পর্যন্ত নাটোরের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর হিসেবে কর্মরত থাকাকালে বৈজ্ঞানিক উপায়ে মাছ চাষের জন্য নাটোর আধুনিক মৎস্য চাষ প্রকল্প লিমিটেডের অনুকূলে ১০ বছরের জন্য বন্দোবস্তকৃত নাটোর সদর উপজেলাধীন ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত ৬০০৪, ৬৯৪৩ ও ৮৫১৭ নং দাগে অবস্থিত ২৭ দশমিক ১৬৯৬ একর আয়তন বিশিষ্ট অর্ধবঙ্গেশ্বরী রানী ভবানী দিঘির দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্ত প্রস্তাব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়াই বিধিবহির্ভূতভাবে অগ্রায়ন করায় এবং পরবর্তীকালে জেলা প্রশাসক তা অনুমোদন দেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তার বিরুদ্ধে ‘সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮’ এর বিধি ৩(খ) অনুযায়ী 'অসদাচরণ' এর অভিযোগ এনে বিভাগীয় মামলা করা হয়।

২০১৯ সালের ৪ নভেম্বর তাকে কারণ দর্শাতে বলা হলে তিনি ১৭ ডিসেম্বর লিখিত জবাব দিয়ে ব্যক্তিগত শুনানি চান। গত বছরের ৬ আগস্ট তার ব্যক্তিগত শুনানি হয়। লিখিত জবাব ও ব্যক্তিগত শুনানিতে দেওয়া বক্তব্য বিবেচনায় অভিযোগটি তদন্তের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের তখনকার অতিরিক্ত সচিব মো. হুমায়ুন কবীরকে (বর্তমানে রাজশাহীর বিভাগীয় কমিশনার) তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।

গত ১৭ আগস্ট তদন্তকারী কর্মকর্তার দাখিল করা তদন্ত প্রতিবেদনে নাজমুন নাহার মান্নুর বিরুদ্ধে আনা অসদাচরণের অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয় বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়।

নাজমুন নাহার এর আগে নরসিংদী জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা থাকার সময়ও টাকা নিয়ে চাকরি না দেওয়া এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির কথা বলে টাকা আদায়সহ নানা ধরনের অভিযোগ ওঠে। ২০১৯ সালের ২৭ জানুয়ারি তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। সেই মামলাটি এখনও নিষ্পত্তি হয়নি।

আরএমএম/বিএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]