ডায়াগনস্টিক সেন্টারে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ, জরিমানা সাড়ে ৪ লাখ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৭ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১

ঢাকার অদূরে টঙ্গী এলাকায় রেজিস্ট্রেশন ব্যতীত ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ব্যবহারের অভিযোগে দুইটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় বিভিন্ন হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগীদের সঙ্গে দালালি ও প্রতারণার অভিযোগে ১০ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা করা হয়।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে র‌্যাব-১ এর সহকারী পরিচালক (অপস্ অফিসার) সহকারী পুলিশ সুপার নোমান আহমদ জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাদির শাহ ও সমন্বয় করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডা. কিশলয় সাহা।

jagonews24

সহকারী পুলিশ সুপার নোমান আহমদ বলেন, চিকিৎসার আড়ালে কিছু অসাধু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান অনুমোদনহীন হাসতপাল বা ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনা ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ব্যবহার করছে বলে গোয়েন্দা তথ্যে জানা যায়। এসব অসাধু ব্যক্তিরা সাধারণ রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি ও আইসিইউতে রেখে প্রচুর টাকার বিল বানিয়ে রোগীদের সর্বশান্ত করে আসছিল। তাছাড়া এক শ্রেণির দালাল ও প্রতারক চক্রের সদস্যদের মাধ্যমে তাদের হাসপাতালে রোগী ভর্তি করিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব-১ ছায়া তদন্ত শুরু করে ও গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত র‌্যাব-১ এর একটি দল গাজীপুরের টঙ্গী পূর্ব থানাধীন নিউ লাইফ হসপিটাল অ্যান্ড ট্রমা সেন্টার ও মা মেডিকেল সেন্টারে ভ্রাম্যমান অভিযান পরিচালনা করে।

jagonews24

অবৈধভাবে রেজিস্ট্রেশন ছাড়া, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ব্যবহার করার অভিযোগে নিউ লাইফ হসপিটাল অ্যান্ড ট্রমা সেন্টারের মো. আশরাফুল ইসলামকে দুই লাখ টাকা, ডা. মতিউর রহমানকে দুই লাখ টাকা ও মা মেডিকেল সেন্টারের সুচিত্রা রোজারিওকে (সুচি) ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

jagonews24

এছাড়া র‌্যাব-১ এর পৃথক অভিযানে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতাল এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে দালালি ও প্রতারণার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পলী চৌধুরী, নিপা আক্তার, নাসিমা আক্তার, লাকি আক্তারকে ৫০০ টাকা করে জরিমানা করা হয়। এছাড়াও ফরহাদ হোসেনকে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, মো. আব্দুল আজিজকে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, মো. সজীবকে ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, মো. ফয়সালকে ৪ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, মো. নাদিম হোসেনকে ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও মো. শরিফুল ইসলাম জীবনকে ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের কেরাণীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো এবং জরিমানার মাধ্যমে আদায়কৃত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

টিটি/ইউএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]