‘দেশ বাঁচাতে নদী বাঁচান’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৩০ পিএম, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

‘বিশ্ব নদী দিবস’ উপলক্ষে রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) দেশের বিভিন্ন এলাকায় পদযাত্রা, নদী ভ্রমণ, মানববন্ধন করেছে পরিবেশবাদী যুব সংগঠন গ্রিন ভয়েস। এবার দিবসটির মূল প্রতিপাদ্য ‘মানুষের জন্য নদী’। তাই তারা কর্মসূচিতে নদী বাঁচাও, বাংলাদেশ বাঁচাও; ‘বাংলাদেশের নদী বাংলাদেশের প্রাণ’ ‘দেশ বাঁচাতে নদী বাঁচান; স্লোগানে দিবসটি পালন করেছেন।

১৯৮০ সালে কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়া রাজ্যে শিক্ষক ও নদীপ্রেমিক মার্ক অ্যাঞ্জেলোর উদ্যোগে দিবসটি পালনের সূচনা হয়। পরে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ায় তা ছড়িয়ে পড়ে। ২০০৫ সালে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে দিবসটি সমর্থন করা হয়। বাংলাদেশে ২০১০ সাল থেকে নদী দিবস উদযাপন শুরু করা হয়।

jagonews24

রোববার সকাল ১০টায় রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে গ্রিন ভয়েস কেন্দ্রীয় পরিষদের আয়োজনে এক ছাত্র-যুব সমাবেশ করা হয়। গ্রিন ভয়েস চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়ক তরিকুল ইসলাম রাতুলের সঞ্চালনায় সংগঠনটির কেন্দ্রীয় পরিষদের যুগ্ম সমন্বয়ক হুমায়ুন কবীর সুমনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- ময়মনসিংহ বিভাগীয় সমন্বয়ক শাকিল কবির, রংপুর বিভাগীয় সমন্বয়ক কাজী মাহমুদ, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়ক ইশরাত জাহান, পার্বত্য চট্টগ্রাম গ্রীন ভয়েস সমন্বয়ক সাচিনু মারমা, বৃহত্তর খুলনা জেলার সমন্বয়ক হাফসা তাসনিম প্রমুখ।

jagonews24

গ্রিন ভয়েসের প্রধান সমন্বয়ক আলমগীর কবির নওগাঁ জেলা শাখার নাগরিক সমাবেশে যোগদান করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদী রক্ষার জন্য বারবার তাগিদ দিলেও বাস্তবায়নে কারো মধ্যেই ততটা তৎপরতা দেখা যায় না, দেশের নদীগুলো রক্ষায় সরকারি-বেসরকারি একক কোনো প্রতিষ্ঠান নেই। নদীর দেখভালের জন্য যেসব প্রতিষ্ঠান রয়েছে তাদের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। নদী রক্ষায় সবার সমন্বিত উদ্যোগ দরকার।

সভাপতির বক্তব্যে গ্রিন ভয়েসের সহ-সমন্বয়ক হুমায়ুন কবীর সুমন বলেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রভাবশালী ক্ষমতাসীন রাজনীতিবিদরাই নদী দখল করে থাকে। এমনকি নদীর ইজারা গ্রহণ করে থাকে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতারা, বিচারহীনতার সংস্কৃতি নদী ধ্বংসের প্রধান কারণ। যারা নদী দখল ও দূষণ করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে না, এইজন্যই নদীগুলোর সর্বনাশ হয়ে যাচ্ছে।

jagonews24

তিনি বলেন, নদী ধ্বংসের জন্য একক কোনো প্রতিষ্ঠান দায়ী নয়, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জেলা পরিষদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মহল পর্যন্ত নদী ধ্বংসের পেছনে দায়ী বলে মনে করেন। ইউনিয়ন ভূমি কার্যালয় নদীর জমি যদি কোনো ব্যক্তির নামে খারিজ না করতো কিংবা খাজনা গ্রহণ না করতো তাহলে সেই জমির মালিকানা ব্যক্তি কখনো দাবি করতে পারতো না।

উপজেলা ও জেলায় ভূমি ব্যবস্থাপনা দেখভালের দায়িত্ব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকের, এই দুই কর্মকর্তা উপজেলা ও জেলা নদী রক্ষা কমিটির সভাপতি, কেউ অবৈধভাবে নদী দখল, দূষণ ও প্রবাহ বাঁধাগ্রস্ত করতে চাইলে এই দুই কর্মকর্তার তা বন্ধ করার কথা। কিন্তু তারা সেটা করছে না। কর্তৃপক্ষের প্রতি নদী রক্ষায় সোচ্চার ভূমিকা রাখার আহ্বান জানাই।

এমএমএ/এমআরএম/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]