বিশ্ব মান দিবস বৃহস্পতিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০৭ পিএম, ১৩ অক্টোবর ২০২১

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) ৫২তম বিশ্ব মান দিবস। পণ্য এবং সেবার মানের বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী এ দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘সমন্বিত উদ্যোগে টেকসই উন্নত বিশ্ব বির্নিমাণে মান’।

এ বছর এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হচ্ছে।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব জাকিয়া সুলতানা বাণী দিয়েছেন।

বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষে জাতীয় মান সংস্থা হিসেবে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এরই অংশ হিসেবে বিএসটিআইর প্রধান কার্যালয়ের পাশাপাশি বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়ে আলোচনা সভাসহ প্রচার-প্রচারণামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিভিশন এবং বাংলাদেশ বেতারে বিশেষ সাক্ষাৎকারভিত্তিক আলোচনা অনুষ্ঠান সম্প্রচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বিভিন্ন মোবাইল ফোনে ক্ষুদে বার্তা (এসএমএস) প্রেরণ করা হবে।

এছাড়া তেজগাঁওয়ে অবস্থিত বিএসটিআইর প্রধান কার্যালয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শিল্পমন্ত্রী। বিশেষ অতিথি থাকবেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী, শিল্পসচিব এবং এফবিসিসিআইর প্রেসিডেন্ট মো. জসিম উদ্দিন। এতে সভাপতিত্ব করবেন বিএসটিআইর মহাপরিচালক ড. মো. নজরুল আনোয়ার।

১৯৪৬ সালের ১৪ অক্টোবর লন্ডনে ২৫টি দেশের প্রতিনিধি একত্রিত হয়ে মান প্রণয়ন কার্যক্রমকে সমৃদ্ধ করতে আন্তর্জাতিক মান সংস্থা সৃষ্টির লক্ষ্যে সম্মত হন। এ দিনটিই মান দিবস হিসাবে বিশেষভাবে চিহ্নিত করা হয়।

যদিও এর একবছর পর ইন্টারন্যাশনাল অরগানাইজেশন ফর স্ট্যান্ডার্ডাইজেশন (আইএসও) প্রতিষ্ঠিত হয়, তবুও ১৯৭০ সালে প্রথম বিশ্ব মান দিবস পালিত হয়। মান প্রণয়নের বর্তমান অবস্থার বিভিন্ন দিকের ওপর ভিত্তি করে প্রতি বছর মান দিবসের একটি প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করে।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মান প্রণয়নে সবার সম্মিলিত উদ্যোগকে স্বীকৃতি দিতে প্রতি বছর আইএসও কর্তৃক বিশ্ব মান দিবস পালন করা হয়ে থাকে। এর সঙ্গে সঙ্গতি রেখে আইএসও সদস্যভূক্ত দেশ হিসেবে বিএসটিআইর উদ্যোগে বাংলাদেশেও দিবসটি উদযাপন করা হয়ে থাকে।

বাংলাদেশ সরকার ১৯৮৫ সালে এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ‘সেন্ট্রাল টেস্টিং ল্যাবরেটরি এবং বাংলাদেশ স্ট্যন্ডার্ডস ইনস্টিটিউশন একীভূত করে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) প্রতিষ্ঠা করে।

এনএইচ/এএএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]