‘মডেল মসজিদের পাশাপাশি শিক্ষা নিকেতন করা উচিত ছিল সরকারের’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩১ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সরকার ৪৬০ উপজেলায় ৪৬০টি মডেল মসজিদ তৈরি করে দিয়েছে। এরই পাশাপাশি যদি আমরা ৪৬০টা শিশু নিকেতন তৈরি করে দিতে পারতাম, যেখানে বাবা-মা মারা গেলে এতিম শিশুরা শুধু হুজুর না হয়ে আধুনিক শিক্ষা, বিজ্ঞাননির্ভর শিক্ষা নিতে পারবে।

রোববার (১৭ অক্টোবর) শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের উদ্যোগে আয়োজিত ‘শিশুদের জন্য নিরাপদ বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও ফোরামের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, গ্রামে গ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয় গড়ে তোলার কথা কিন্তু সেখানে দুই-তিনটা করে নুরানি মাদরাসা, হাফেজিয়া মাদরাসা গড়ে উঠেছে। ব্যতিক্রম বাদ দিয়ে সেই মাদরাসাগুলোতে বাংলার সংস্কৃতি, সব ধর্মের সহাবস্থান তৈরি করার কোনো অনুকূল পরিবেশ নেই।

তিনি বলেন, প্রতি বছর বিভিন্ন কারণে হাজার হাজার শিশু এতিম হয়। লাখ লাখ এতিম শিশুর দায়িত্ব কে নেয়? বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এদের দায়িত্ব নেয় হাফেজিয়া মাদরাসাগুলো। এতিম হলেই হাফেজ হতে হবে কেন? রাষ্ট্র এদের জন্য কী ব্যবস্থা নিয়েছে- প্রশ্ন রাখেন তিনি।

‘এতিম হওয়া মানে তারা হুজুরদের হাতে চলে যাবে, আপনারা কী মনে করেন। আমরা যদি দ্রুত ভালো কোনো ব্যবস্থা না নিই তাহলে সব এতিম হুজুরদের অধীনে চলে যাবে। এতিম হলেই তাদের দিয়েই আত্মঘাতী হামলা করাতে পারবে। কারণ আপনি আমি মরার আগে চিন্তা করবো- আমার পরিবারের কী অবস্থা হবে। তাদের তো পরিবার নেই, তাই তাদের চিন্তাও নেই।’

ড. মীজানুর রহমান বলেন, আমাদের দেশে বর্তমানে শিশুর সংখ্যা প্রায় পাঁচ কোটি। ৭৬ শতাংশ থাকে গ্রামে আর ২৩ শতাংশ শহরে। শহরে ও গ্রামের শিশুদের মাঝে শিক্ষার ব্যবধান তো আছেই, এছাড়া শহরের বাচ্চাদের বেড়ে উঠতে যে পরিবেশ দরকার সেই পরিবেশ আমরা দিতে পারছি না। বাচ্চাদের মোবাইল আসক্তি, মিডিয়া নির্ভরতা এসব কীভাবে সমাধান হবে তা আমরা জানি না।

তিনি বলেন, ‘জাতির পিতার সোনার বাংলাদেশে আমাদের শুধু আর্থিকভাবে সচ্ছল হলে চলবে না। মানবিকতাপূর্ণ যে সমাজ গড়ে তুলতে হলে প্রয়োজন শিক্ষা, সমাজ ও সংস্কৃতি। কুমিল্লায় যে ঘটনা ঘটিয়েছে তাতে বোঝা যায়, অর্থনীতিতে আমরা যতটুকু উন্নতি করতে পেরেছি সংস্কৃতি বা সাম্যের বাংলাদেশের ক্ষেত্রে সেটা করতে পারিনি।’

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান, সাবেক আইজিপি ও কলামিস্ট এ কে এম শহীদুল হক, দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত ও জাগো নিউজের সহকারী সম্পাদক ও কলামিস্ট ড. হারুন রশীদ প্রমুখ।

এএএম/এআরএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]