‘বঙ্গবন্ধু আর ১০ বছর বাঁচলে দেশ মালয়েশিয়া-সিঙ্গাপুর হতো’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৫ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০২১

বঙ্গবন্ধু আর মাত্র ১০ বছর বাঁচলেই দেশ মালয়েশিয়া-সিঙ্গাপুর হয়ে যেতো বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক।

তিনি বলেন, অনেকেই বলেন বঙ্গবন্ধু বাকশাল গঠন করে গণতন্ত্র হত্যা করেছেন। বাকশাল মানে কি গণতন্ত্রকে হত্যা? বাকশাল গঠনের মূল উদ্দেশ্য ছিল একটি প্ল্যাটফর্মকে সামনে রেখে দেশ গঠনের জন্য সবাই কাজ করবে। তিনি যদি গণতন্ত্র হত্যা করতেনই, তাহলে তো আগে জাসদকে নিষিদ্ধ করতেন। কারণ তখন জাসদ সারাদেশে অনেক অরাজকতা করেছে। তিনি তো তা করেননি।

রোববার (১৭ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম আয়োজিত ‘শিশুদের জন্য নিরাপদ বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ কে এম শহীদুল হক বলেন, একটি সুন্দর কমিউনিটি গঠন না করলে সুন্দর সমাজ গঠন সম্ভব নয়। শিশুদেরও গঠন সম্ভব নয়। আর বঙ্গবন্ধু বাকশাল গঠনের মধ্য দিয়ে এটাই করতে চেয়েছিলন।

সাবেক আইজিপি বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশুদের ভালোবাসতেন। কারণ তিনি জানতেন শিশুরাই আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। এজন্য তাদের ভালোবেসে, তাদের সঠিক পথে বড় হতে দিয়ে সুনাগরিক হিসেবে তৈরি করতে হবে। এবং তিনি এই লক্ষ্য তার পরিবার থেকেই শুরু করেছিলেন। তার সন্তানদের সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলেছিলেন। শেখ রাসেল আজ বেঁচে থাকলে আমরা তার কাছ থেকে অনেক কিছু পেতাম। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে আমরা শেখ রাসেলের মাঝেই পেতাম। অথচ এই শিশুর কান্নাও ঘাতকদের মন ছুঁয়ে গেলো না।

শিশু নির্যাতন বিষয়ে সাবেক আইজিপি বলেন, দেশে প্রতিনিয়ত শিশু নির্যাতন হয়। শিশুরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছে। হত্যা হচ্ছে, অপহরণ হয়, যৌন নির্যাতন হয়। পুলিশের কাছে যেসব অভিযোগ আসে, প্রতিটা অভিযোগই তদন্ত হয়, চার্জশিট গঠন হয়। কিন্তু আমার মনে হয়, এসব অপরাধের চার্জশিট হয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়েছে এমন ঘটনা খুব কমই আছে। সাজা না হলে তো এসব থামানো সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, শিশু নির্যাতনের বিকৃত মানসিকতা থেকে বের হয়ে আসতে হলে একটা সামাজিক বিপ্লব দরকার। একটা সাংস্কৃতিক বিপ্লব দরকার, সাংস্কৃতিক পরিবর্তন দরকার। সুশীল মানুষ গড়তে হলে সুশীল সমাজ দরকার। এজন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক পরিবর্তন। প্রগতিশীল রাজনীতিকে এগিয়ে আসতে হবে। যেসব সাম্প্রদায়িক রাজনীতি হয় তাকে দমন করতে হবে।

কুমিল্লার ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এবারের কুমিল্লার ঘটনায় আমরা একটু পরিবর্তন দেখলাম। সেখানে হেফাজতকে নামতে দেখা যায়নি। মনে হচ্ছে তাদের মধ্যে একটা শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে। এদের মেইনস্ট্রিমে নিয়ে আসতে হবে। আলেম ও মাদরাসাগুলো মেইনস্ট্রিমে নিয়ে আসতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে যেসব আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা অব্যাহত রাখতে হবে। তাদের মোটিভেশন করতে হবে এবং তাদের সাথেই রাখতে হবে। তবেই তারা যে বিকৃত মানসিকতা ধারণ করে এবং বিকৃত কথাগুলো প্রচার করে সেগুলো বন্ধ হবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান, দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত এবং জাগো নিউজের সহকারী সম্পাদক ও কলামিস্ট ড. হারুন রশীদ।

এমআইএস/বিএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]