ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির সরকারি খরচে নির্মাণ করে দেওয়ার দাবি নুরের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:২০ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০২১

দেশের বিভিন্ন স্থানে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির সরকারি খরচে নির্মাণ করে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর। একই সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দ্বিগুণ ক্ষতিপূরণ দেওয়ারও দাবি জানান তিনি।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিতে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ দাবি জানান।

নুরুল হক নুর বলেন, এ ঘটনায় রাজনৈতিক দলগুলো একে অন্যের ওপর দায় চাপাচ্ছে। একদল অন্যদলের ওপর দায় চাপানোর বক্তব্য নয়, দ্রুত বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। শুধু লোক দেখানো তদন্ত কমিটি কিংবা ঘটনাস্থল পরিদর্শন, এর মধ্যেই যেন ঘটনার শেষ না হয়ে যায়।

ডাকসুর সাবেক ভিপি বলেন, আরেকটা বিষয় উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাদের দেশে একটি ঘটনা নিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের রাজনৈতিক দল বিজেপির নেতারা যখন বাংলাদেশকে নিয়ে আক্রমণাত্মক বক্তব্য দেয়, তখন এই বিষয়টি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। আমরা যখন দেখি পশ্চিমবঙ্গের উগ্র হিন্দুত্ববাদী দলের নেতা শুভেন্দু অধিকারীরা নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দেয় বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে, তখন এই বিষয়টা আমাদের ভাবিয়ে তোলে। কারণ আমরা দেখেছি পদ্মা সেতুর আশপাশ থেকে ভিনদেশি পাগল আটক করা হয়। আজ বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের জন্য ভিনদেশিরা এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে কিনা সন্দেহ থেকেই যায়।

নুর আরও বলেন, আমরা হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবাইকে বলতে চাই, বাংলাদেশে একটা অসাম্প্রদায়িক দেশ। এই ফায়সালা ১৯৭১ সালের যুদ্ধের মধ্য দিয়েই হয়ে গেছে। এখানে সকল ধর্মের মানুষ তাদের ধর্মীয় স্বাধীনতা থেকে সকল অধিকার ভোগ করবে। সংখ্যালঘুদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে সংখ্যাগুরুদেরই পাশে দাঁড়াতে হবে।

নুর উল্লেখ করেন, নাসিরনগরে মন্দির ভাঙচুরের সঙ্গে জড়িত তিনজনকে স্থানীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীক দেওয়া হয়েছিল। তার মধ্যেই আমরা বুঝতে পারি এই সরকার অপশক্তিকে প্রশ্রয় দিচ্ছে। নোয়াখালীতে তিন হাজার মানুষকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা হয়েছে, চাঁদপুরে আড়াই হাজার মানুষকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা হয়েছে, কাকরাইল ও পল্টনে চার হাজার মানুষকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা দিয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় শান্তিপ্রিয় মানুষকে উসকে দিতে তারা মিছিলে গুলি চালাচ্ছে। মিছিলে গুলি চালিয়ে তারা মানুষকে হত্যা করে মন্ত্রীরা উল্টাপাল্টা বক্তব্য দিয়ে পরিস্থিতিকে উসকে দিচ্ছে। সেই জায়গা থেকে আমরা স্পষ্ট বলতে চাই, এই ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত সে এমপি-মন্ত্রী যাই হোক না কেন সরকারি দল কিংবা বিরোধী দল যাই হোক না কেন, তাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

এসময় শাহবাগে আন্দোলনকারী সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি জানান নুর।

এমআইএস/বিএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]