হামলার চক্রান্তকারীদের শনাক্ত করে শাস্তি দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:০২ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০২১

কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক সহিংসতা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এসব হামলা চালানো হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের সংগঠন প্রজম্ম ৭১। একইসঙ্গে চক্রান্তকারীদের শনাক্ত করে যথাযথ শাস্তি দেওয়ার আহ্বান জানান সংগঠনটির নেতারা।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে এ আহ্বান জানান সংগঠনটির নেতারা।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, এর আগে ২০১৬ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এ ধরনের ঘটনা ঘটে। সকল ধর্মের মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান যতবার সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী বিনষ্ট করতে সফল হয়, ততবার ৩০ লক্ষ শহীদের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের স্বপ্ন ভূলুণ্ঠিত হয়।

বক্তারা আরও বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে সংবিধানের চার মূল নীতির ভিত্তিতে এদেশের সকল নাগরিক সমানভাবে আইন ও নিরাপত্তার অধিকার পাবে। সমানভাবে মত প্রকাশ ও ধর্মীয় উৎসব পালন করবে- এটা আমাদের সকলের অধিকার। কিন্তু তারপরেও আমরা দেখছি প্রতিনিয়ত কিছু অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটছে। ১৯৭১-এর মতো এখনও একটি সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীর ওপর আক্রমণ হচ্ছে, এটি দুঃখজনক।

সারাদেশের সকল পূজামণ্ডপে এবার নিরাপত্তা শিথিল ছিল মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, যে ব্যক্তি পূজামণ্ডপে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ রেখেছে, তাকে শনাক্ত করা গেছে। এটি গোয়েন্দা তৎপরতার ভালো দিক। কিন্তু সারা দেশের সকল পূজামণ্ডপেই এ বছর নিরাপত্তা শিথিল ছিল বলে মনে করছি। এমনকি নানুয়াদিঘির পূজামণ্ডপ থেকে পুলিশ সেই ভোর বেলাতেই ধর্মগ্রন্থ উদ্ধার করলেও, সারাদেশে সেইদিনই কেন নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হলো না, সেটি আমাদের বোধগম্য নয়।

দেশের কেন্দ্রীয় শাসনব্যবস্থার মত স্থানীয় প্রশাসনের মধ্যেও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী মানুষ ও মতাদর্শের অনুপ্রবেশ ঘটেছে মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারকে অস্থিতিশীল করা এদের অন্যতম একটি লক্ষ্য। এ কারণেই দুর্গাপূজার সময় দেশের প্রান্তিক জায়গাগুলোতে স্থানীয় প্রশাসনকে যথেষ্ট নিরাপত্তার প্রস্তুতি নিতে দেখা যায়নি। চলমান সাম্প্রদায়িক হামলা এদেশের একটি প্রশাসনিক ব্যর্থতাও বলে মন্তব্য করেন তারা।

মানববন্ধনে প্রজন্ম ৭১-এর সঙ্গে আরও একাধিক প্রগতিশীল সংগঠনের নেতারা অংশ নেন।

এমআইএস/কেএসআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]